আজ ২৩ জুন ঐতিহাসিক পলাশী দিবসঃ ইতিহাসের এক কালো অধ্যায়

সিবিএল২৪:

আজ ২৩ জুন পলাশী দিবস। দেশীয় বণিক, বিশ্বাস ঘাতক ও ইংরেজ বেনিয়াদের চক্রান্তে পলাশীর আক্রমণে বাংলার স্বাধীনতা সূর্য অস্তমিত হয়। নবাব সিরাজউদ্দৌলা পলাশীর প্রান্তরে ইংরেজদের সাথে মাত্র এক ঘণ্টার প্রহসনের যুদ্ধে পরাজিত হন। তার পর প্রায় দুই শ’ বছরের গোলামির জিঞ্জির। ইংরেজ বেনিয়াদের হাত থেকে দেশকে স্বাধীন করার জন্য সুদীর্ঘ প্রায় দুই শ’ বছরের আন্দোলন। কত বীরের রক্ত ঝরেছে, কত মায়ের কোল খালি হয়েছে, কালের গর্ভে ইতিহাস তার সাক্ষী। পলাশীর ২৩ জুনের ইতিহাস প্রকৃত সোনার বাংলাকে শ্মশানে পরিণত করার ইতিহাস। ২৩ জুনের ইতিহাস, বিশ্বাস ঘাতকতার ইতিহাস।
পলাশীর প্রান্তরে মীর জাফরের বিশ্বাস ঘাতকতায়, বাংলা, বিহার, উড়িষ্যার ভাগ্য বিপর্যয় দেখা দিয়েছিল। মীর জাফর অবশ্যই বিশ্বাস ঘাতক ছিলেন, ইতিহাসে দেখা যায় তার চেয়ে বহুগুণ বড় ও সফল বিশ্বাস ঘাতক ছিলেন ধনকুবের জগৎ শেঠ। মীর জাফর বিজাতি, বিদেশী ইংরেজদেরকে কখনো আপন উদ্যোগে ডেকে আনেননি। সে কাজটি করেছিলেন জগৎশেঠ গোষ্ঠী ও তাদের সঙ্গী সাথীরা। তিনি ছিলেন শিখণ্ডি মাত্র।
মাড়োয়ারি হীরা চান্দ লোটা-কম্বল সম্বল করে সুবে-বাংলায় এসেছিল ১৬৯৫ সালে। তারপর ছেলে মানিক চাঁদ পরে সুবে বাংলায় পাটনা থেকে চলে আসে ঢাকায়। এই মানিক চাঁদের ভাগিনাই ফতে চাঁদ হচ্ছে কুখ্যাত স্বরূপ চাঁদ জগৎশেঠ। যে ছিল তথা ভারতের বুক থেকে মুসলিম শাসনের উচ্ছেদের মূল নায়ক। ইতিহাসে দেখা যায়, বিভিন্ন কূটনীতি ও কলা-কৌশলের এই পথের বিশ্বস্ত সহযোগী ছিল মীর জাফর, ইয়ার লতিফ, শেঠ রূপ চাঁদ, মাহতাব রায়, রায়দুর্লভ, রাজা রাজ বল্লভ, নন্দ কুমার, উমিচাঁদ, দুর্লভরাম, মানিক চাঁদসহ আরো অনেকে। দেশ ও জাতির অকল্পনীয় ক্ষতির দুয়ার এরাই খুলে দেন এবং ইতিহাসের কদাকার আবর্জনায় এরা নিক্ষিপ্ত হয়। এই স্বরূপ চাঁদ জগৎশেঠ ও পিতামহের নীতি ও আদর্শের অনুসারী ছিলেন এবং জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত সিরাজউদ্দৌলা, মীর জাফর ও মীর কাশিমের সাথে বিশ্বাস ঘাতকতার ধারা অব্যাহত রেখেছিলেন। নবাবের উদার ছত্রছায়ায় সুদের ব্যবসায় অর্থলগ্নি করে এই স্বরূপ চাঁদ হয়েছিলেন ধনকুবের। নবাবের দরবারে সর্বগ্রাসী ক্ষমতার অধিকারী ছিলেন এই স্বরূপ চাঁদ জগৎশেঠ। পাঁচ পুরুষ ধরে নবাবের দরবারে সর্বাত্মক পৃষ্ঠপোষকতা এবং নিজেদের ক্রমবর্ধিষ্ণু বিশ্বাসঘাতকতায় চক্রবৃদ্ধি হারে বেড়ে অপরিমেয় বিত্তের অধিকারী জগৎশেঠই ইংরেজদেরকে বাংলার শাসন ক্ষমতায় প্রতিষ্ঠার কাজে তৎকালে সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন। ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়, সে সময়ে জগৎশেঠের পরিবারের বার্ষিক আয় ছিল ৪০ লাখ টাকা, যা বর্তমান বাংলাদেশের মুদ্রা মানে ৯০০ শত কোটি টাকারও বেশি। মুর্শিদাবাদের দরবারে বেসরকারি ব্যক্তিত্ব হয়েও বিপুল ক্ষমতার অধিকারী ছিলেন এই স্বরূপ চাঁদ জগৎশেঠ। মুর্শিদকুলী খাঁর আমল থেকে পড়ে ওঠা নব্যবণিক শ্রেণীকে ও বিদেশী বণিকদেরকে পুঁজি সরবরাহ করে সারা দেশের ব্যবসা-বাণিজ্যের একক করায়ত্ত চলে আসে তার হাতে। এই সুবাদেই নবাবের দরবারে ডজন খানেক মন্ত্রী বা প্রধানমন্ত্রীর চেয়েও অনেক গুণ বেশি শক্তিশালী ও কর্ণধার ব্যক্তি ছিলেন এই স্বরূপ চাঁদ জগৎশেঠ। প্রচলিত ইতিহাসে সিরাজউদ্দৌলা অত্যাচারী, নারী লোভী, মাতাল এবং আরো অনেক দোষে দোষী সাব্যস্ত করা হয়। তরুণ যুবক সিরাজের কিছু কিছু দোষ ত্রুটি থাকাই স্বাভাবিক, অস্বাভাবিক কিছু নয়। সত্যিকারভাবে ইতিহাসের বিচার বিশ্লেষণ করলে দেখা যাবে, এগুলো অতিরঞ্জিত। এর কোনো ঐতিহাসিক ভিত্তি নেই।

আজ ২৩ জুন ঐতিহাসিক পলাশী ট্রাজেডি দিবস। এটি বাঙালির ইতিহাসে এক কালো অধ্যায়। ২৫৯ বছর আগে ১৭৫৭ সালের এই দিনে ভাগীরথীর তীরে পলাশীর আম বাগানে ইংরেজদের সঙ্গে এক প্রহসনের যুদ্ধে বাংলা বিহার ও উড়িষ্যার নবাব সিরাজ-উদ-দৌলার পরাজয়ের মধ্য দিয়ে অস্তমিত হয় বাংলার স্বাধীনতার শেষ সূর্য। মীরজাফর-ঘষেটি বেগমরা সেই প্রাসাদ ষড়যন্ত্রের কুশীলব। 

প্রহসনের ঐ যুদ্ধে পরাজয়ের পর নবাবের বেদনাদায়ক মৃত্যু হলেও উপমহাদেশের মানুষ নবাবকে আজও শ্রদ্ধা জানায়। তার সঙ্গে যারা বিশ্বাসঘাতকতা করেছিল তাদের স্বাভাবিক মৃত্যু হয়নি। পক্ষান্তরে মীরজাফর আজ বেঈমানের প্রতিশব্দ হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। ঘৃণিত এই নামটি কোন মা-বাবাই সন্তানের জন্য রাখতে চান না।  

ইতিহাসবিদ নিখিল নাথ রায়ের লেখা ‘মুর্শিদাবাদ কাহিনী’ থেকে জানা যায়, নবাবের সেনা বাহিনীর তুলনায় ইংরেজদের সেনা সংখ্যা ছিল অনেক কম। সেখানে বিশ্বাসঘাতকতা না হলে নবাবের বিজয় ছিল সুনিশ্চিত।

ষোল শতকের শেষের দিকে ওলন্দাজ, পর্তুগীজ ও ইংরেজদের প্রাচ্যে ব্যাপক বাণিজ্যের প্রসার ঘটে। এক পর্যায়ে ইংরেজরা হয়ে যায় অগ্রগামী। এদিকে বাংলার সুবাদার-দিওয়ানরাও ইংরেজদের সাথে সুসম্পর্ক গড়ে তোলেন। ১৭১৯ সালে মুর্শিদকুলী খাঁ বাংলার সুবাদার নিযুক্ত হন। তার মৃত্যুর পর ওই বছরই সুজাউদ্দিন খাঁ বাংলা-বিহার-উড়িষ্যার সিংহাসন লাভ করেন। এই ধারাবাহিকতায় আলীবর্দী খাঁর পর ১৭৫৬ সালের ১০ এপ্রিল সিরাজউদ্দৌলা বাংলা-বিহার-উড়িষ্যার সিংহাসনে আসীন হন। তখন তার বয়স মাত্র ২২ বছর। 

তরুণ নবাবের সাথে ইংরেজদের বিভিন্ন কারণে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়। এছাড়া রাজ সিংহাসনের জন্য লালায়িত ছিলেন সিরাজের পিতামহ আলীবর্দী খাঁর বিশ্বস্ত অনুচর মীর জাফর ও খালা ঘষেটি বেগম। ইংরেজদের সাথে তারা যোগাযোগ স্থাপন ও কার্যকর করে নবাবের বিরুদ্ধে নীলনকশা পাকাপোক্ত করে।

দিন যতই গড়াচ্ছিল এ ভূখন্ডের আকাশে ততই কালো মেঘ ঘনীভূত হচ্ছিল। ১৭৫৭ সালের ২৩ এপ্রিল কলকাতা পরিষদ নবাবকে সিংহাসনচ্যুত করার পক্ষে প্রস্তাব পাস করে। এই প্রস্তাব কার্যকর করতে ইংরেজ সেনাপতি লর্ড ক্লাইভ রাজদরবারের অভিজাত সদস্য উমিচাঁদকে ‘এজেন্ট’ নিযুক্ত করেন। এ ষড়যন্ত্রের নেপথ্য নায়ক মীর জাফর।

নবাব ষড়যন্ত্র আঁচ করতে পেরে মীরজাফরকে প্রধান সেনাপতির পদ থেকে অপসারণ করে আব্দুল হাদীকে অভিষিক্ত করেন। কিন্তু কূটচালে পারদর্শী মীর জাফর পবিত্র কুরআন শরীফ ছুঁয়ে শপথ করলে নবাবের মন গলে যায় এবং মীর জাফরকে প্রধান সেনাপতি পদে পুনর্বহাল করেন। সমসাময়িক ঐতিহাসিক বলেন, এই ভুল সিদ্ধান্তই নবাব সিরাজের জন্য ‘কাল’ হয়ে দাঁড়ায়।

ইংরেজ কর্তৃক পূর্ণিয়ার শওকত জঙ্গকে সাহায্য করা, মীরজাফরের সিংহাসন লাভের বাসনা ও ইংরেজদের পুতুল নবাব বানানোর পরিকল্পনা, ঘষেটি বেগমের সাথে ইংরেজদের যোগাযোগ, নবাবের নিষেধ সত্ত্বেও ফোর্ট উইলিয়াম দুর্গ সংস্কার, কৃষ্ণ বল্লভকে কোর্ট উইলিয়ামে আশ্রয় দান প্রভৃতি কারণে ১৭৫৭ সালের ২৩ জুন পলাশীর আমবাগানে সকাল সাড়ে ১০টায় ইংরেজ ও নবাবের মধ্যে যুদ্ধ সংঘটিত হয়। মীর মদন ও মোহন লালের বীরত্ব সত্ত্বেও জগৎশেঠ, রায় দুর্লভ, উর্মিচাঁদ, ইয়ার লতিফ প্রমুখ কুচক্রী প্রাসাদ ষড়যন্ত্রকারীদের বিশ্বাসঘাতকতার ফলে নবাবের পরাজয় ঘটে। সেই সাথে বাংলার স্বাধীনতার লাল সূর্য পৌনে দু’শ’ বছরের জন্য অস্তমিত হয়।

ঐতিহাসিক মেলেসন পলাশীর প্রান্তরে সংঘর্ষকে ‘যুদ্ধ’ বলতে নারাজ। তার মতে, “নবাবের পক্ষে ছিল ৫০ হাজার সৈন্য আর ইংরেজদের পক্ষে মাত্র ৩ হাজার সৈন্য। কিন্তু প্রাসাদ ষড়যন্ত্রকারী ও কুচক্রী মীরজাফর, রায় দুর্লভ ও খাদেম হোসেনের অধীনে নবাব বাহিনীর একটি বিরাট অংশ পলাশীর প্রান্তরে ইংরেজদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে কার্যত কোনো অংশগ্রহণই করেনি। এই কুচক্রীদের চক্রান্তে যুদ্ধের প্রহসন হয়েছিলো।” 

আরেক ঐতিহাসিক ড. রমেশ চন্দ্র বলেন, “নবাব ষড়যন্ত্রকারীদের গোপন ষড়যন্ত্রের কথা জানার পর যদি মীর জাফরকে বন্দি করতেন, তবে অন্যান্য ষড়যন্ত্রকারী ভয় পেয়ে যেতো এবং ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হলে পলাশীর যুদ্ধ হতো না।”

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply