আনোয়ার হোসেনঃ এক অদম্য করোনাযোদ্ধার গল্প

রাসেল চৌধুরীঃ

একজন অদম্য করোনাযোদ্ধা আনোয়ার!

কক্সবাজার শহরের বাহারছড়ার বাসিন্দা আনোয়ার হোসেন। তিনি কোন ডাক্তার বা স্বাস্থ্যকর্মী নয়। নয় কোন টেকনোলজিস্ট বা ফার্মাসিস্ট। তবে স্বাস্থ্য সেবা প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িত প্রায় ২০ বছর। দীর্ঘদিন কক্সবাজার শেভরণ ল্যাবে একাউন্টস শাখায় চাকরি করেছেন। এখন ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত আছেন ইউনিয়ন হাসপাতালে।

এই করোনাকালে চারিদিকে যখন “চাচা আপন প্রাণ বাচাঁ” অবস্থা, একজন থেকে আরেক জন নিরাপদ দুরত্বে, পিতা পুত্রকে, সন্তান পিতামাতাকে, স্বামী স্ত্রীকে, স্ত্রী স্বামীকে, ভাই ভাইকে এড়িয়ে চলছেন, তখন করোনা আক্রান্ত রোগীদের পাশে একবুক সাহস নিয়ে দাঁড়িয়েছেন আনোয়ার। তার সাহসী ভূমিকা মানুষের হ্নদয় ছুঁয়েছে।
গত তিনমাসে ধরে তিনি করোনা রোগীদের কাছে ঔষধ পৌছে দেওয়া, এম্বুলেন্স ম্যানেজ করা, এম্বুলেন্সে রোগীকে তুলে দেওয়ার কাজ করেছেন।

এই যেন সেবা নয়, মৃত্যুকে ছোঁয়ার অনবরত চেষ্টা করে যাচ্ছেন আনোয়ার! কিন্তু মৃত্যু তাকে ধরা দিচ্ছে না। আনোয়ারের গত তিনমাসের কর্মকাণ্ড সম্পর্কে যে বা যারা জানেন, তাদের কাছে তিনি এক বিস্ময়ের নাম।

রমজানের শুরুরদিকে প্রথম করোনা আক্রান্ত এক ডাক্তারের সংস্পর্শে যান আনোয়ার। ওই ডাক্তার করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবরে সবার মধ্যে ভীতির সৃষ্টি হয়। সবাই তাকে ছেড়ে চলে যায়। এমনকি ঘনিষ্ঠজনরাও তার ধারেকাছে আসেনি। ওই সময় সাহস করে আক্রান্ত ডাক্তারের জন্য ঔষুদ ও পানি নিয়ে যায় আনোয়ার। ঔষুদ পৌছে দিতে গিয়ে দেখেন, ডাক্তার একা একা বসে আছেন, তার পাশে কেউ নেই। তাকে দেখে খুবই অসহায় মনে হয়েছে। ডাক্তারের পাশে আধঘণ্টারও বেশী সময় ছিলেন তিনি। এরপর ডাক্তারকে এম্বুলেন্সে তুলে দেন।

আনোয়ারের ঘনিষ্ঠ বন্ধু কক্সবাজার পৌর ১০নং ওয়ার্ড কাউন্সিলার সালাউদ্দিন সেতু গত ২৮ মে করোনায় আক্রান্ত হন। কাউন্সিলার সেতুকে করোনা টেস্ট করাতে নিয়ে যান আনোয়ার নিজেই । সেতুর করোনা পজিটিভ আসার পরও সেতু থেকে আলাদা হননি তিনি। বরং সেতুর রুমে ছুটে যেতেন বারবার। সেতু মানসিকভাবে ভেঙে পড়লে তাকে সবরকমের সাহস ও ভরসা দেন আনোয়ার।
পরের দিন সালাউদ্দিন সেতুর বউ ও সন্তানদের নমুনা পরীক্ষা করাতে নিয়ে যান সদর হাসপাতালের ল্যাবে।পরে তাদের রিপোর্টও পজিটিভ আসে।

এরপর আবারও ডাক পড়ে আনোয়ারের। করোনা পজিটিভ কক্সবাজার পৌর মেয়র মুজিবুর রহমানকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হবে। এজন্য দরকার এম্বুল্যান্সে। করোনায় আক্রান্ত মেয়র মুজিবুর রহমানের সন্তান মেহেদি একা কুলিয়ে উঠতে পারছিলেন না। সংবাদ পেয়েই রাত ১১টায় ছুটে যান আনোয়ার হোসেন। নিজ তদারকিতে এম্বুল্যান্স ম্যানেজ করে এবং তাতে উঠাতে সার্বিক সহযোগিতা করেন তিনি।
তখনও তিনি জানতেন না মেয়র মুজিবের স্ত্রী ও সহকারি রানা করোনা পজিটিভ। তাদের সাথে স্বাভাবিক ভাবেই মিশে যান আনোয়ার হোসেন। পরে তিনি এ বিষয়ে অবগত হন। এভাবে নিজের জীবনের তোয়াক্কা না করে অসংখ্য করোনা পজিটিভ রোগীর পাশে দাড়িয়েছেন আনোয়ার।

আনোয়ার এক ছেলে ও এক কন্যা সন্তানের জনক। মা জীবিত নেই। পিতা, স্ত্রী ও ছেলেমেয়েদের নিয়ে তার সংসার।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, তিনি এ পর্যন্ত ২০ জনেরও অধিক করোনা রোগীর সংস্পর্শে গেছেন। আল্লাহর অসীম রহমতে তিনি এখনো সু্স্থ আছেন। করোনা আক্রান্ত হবেন না বলেই তার বিশ্বাস। তিনি বলেন, তাকে এবং তার পরিবারকে আল্লাহ রক্ষা করবেন।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply