‘ইয়ংমেনস ক্লাব’ ক্যাসিনোর চেয়ারম্যান রাশেদ খান মেনন

ফকিরাপুলে ইয়ংমেনস ক্লাব নামে একটি ক্যাসিনোতে অভিযান চালিয়ে নারীসহ ১৪২ জনকে আটক করেছে র‌্যাব। তাদের প্রত্যেককে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

বুধবার দুপুরের পর ক্লাবটিতে অভিযান শুরু করেন র‌্যাব সদস্যরা। এ সময় বিপুল পরিমাণ টাকা ও জোয়া খেলার সামগ্রী জব্দ করা হয় বলে জানা গেছে।

অভিযোগ রয়েছে, যুবলীগের নেতৃত্বে থাকা কয়েকজন শীর্ষ নেতার তত্ত্বাবধানে এই ক্লাবটিতে বানানো ক্যাসিনোতে নিয়মিত জুয়ার আসর বসে।

ইয়ংমেন্স ক্লাবের গভর্নিং বডির চেয়ারম্যান স্থানীয় সংসদ সদস্য রাশেদ খান মেনন।

তার দাবি, এ ক্লাবের ভেতরে জুয়ার আসর বসতো এমন খবর তার জানা ছিল না। তিনি ফুটবল ও ক্রিকেট খেলার ক্লাব হিসেবেই সেটাকে জানতেন এবং সেই কারণেই তাদের অনুরোধে চেয়ারম্যান হয়েছেন।

বুধবার রাজধানীর ফকিরাপুলের ইয়ংমেন্স ক্লাবে র‌্যাবের অভিযানের পর গণমাধ্যমকে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী সাব্বির এ ক্লাবটিরও সাধারণ সম্পাদক।

হাজী সাব্বিরই তাকে ওই ক্লাবে নিয়ে গিয়ে চেয়ারম্যান হিসেবে ঘোষণা দিয়েছিলেন বলে দাবি করেন মেনন।

ক্লাবটির একটি কক্ষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি ঝোলানো রয়েছে। এর বিপরীত পাশের দেয়ালে ঝোলানো রাশেদ খান মেননের ছবি।

এদিকে যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে অস্ত্রসহ আটক করেছে র‌্যাব।

বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় রাজধানীর গুলশান ২ নম্বরে ৫৯ নম্বর সড়কের বাসা থেকে তাকে আটক করা হয়।

ফকিরাপুলে অবস্থিত ইয়ংমেনস ক্লাব নামের ক্যাসিনোর তত্ত্বাবধানে ছিলেন তিনি।

যুবলীগের এ নেতাকে ধরতে বিকাল ৪টা থেকে তার গুলশানের বাড়িও ঘেরাও করে রাখে র‌্যাব। পরে প্রায় ৪ ঘণ্টা অভিযান চালানোর পর অস্ত্রসহ বাসা থেকে তাকে আটক করতে সক্ষম হয় র‌্যাব।

র‌্যাবের মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক সারোয়ার বিন কাশেম সাংবাদিকদের বলেন, খালেদ ভূঁইয়াকে ধরতে তার বাড়ি ঘিরে অভিযান চালানো হয়। পরে সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় বাসা থেকে তাকে আটক করা হয়।

প্রসঙ্গত, জুয়ার আড্ডাগুলো সম্পর্কে সম্প্রতি প্রমাণসহ গোয়েন্দা রিপোর্ট প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে জমা দেয়া হয়েছে। এতে চরম ক্ষুব্ধ হয়ে প্রধানমন্ত্রী জড়িতদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ও প্রশাসনিক কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্ধৃতি দিয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা জানান, সম্প্রতি কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে শেখ হাসিনা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছেন- আমার কাছে আরও তথ্য আছে রাজধানীর সব সুউচ্চ ভবনের ছাদ দখল নিয়েছে যুবলীগের নেতারা। সেখানে ক্যাসিনো খোলা হয়েছে।যুবলীগের সবার আমলনামা আমার হাতে এসেছে। আমি সবার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলে দিয়েছি।

গত ১৪ সেপ্টেম্বর আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে অনির্ধারিত আলোচনায় যুবলীগ নিয়ে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply