উচ্চ শিক্ষা ও গবেষণায় বাংলাদেশ সম্ভাবনাময়

[ad_1]

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়: উচ্চ শিক্ষা ও গবেষণায় অপার সম্ভাবনা রয়েছে বাংলাদেশের। এ সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে মেধাবী শিক্ষক-গবেষকদের যুগোপযোগী শিক্ষা ব্যবস্থার সঙ্গে সমন্বয় রেখে নতুন নতুন জ্ঞান উদ্ভাবন ও শিক্ষার্থীদের মাঝে তা ছড়িয়ে দিতে হবে।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) শিক্ষক সমিতির আয়োজনে ‘হায়ার অ্যাডুকেশন অ্যান্ড রিসার্চ ইন বাংলাদেশ; কনস্ট্রেইন অ্যান্ড প্রোসপেক্ট’ শীর্ষক বার্ষিক সেমিনারে বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস’র (বিইউপি) বঙ্গবন্ধু চেয়ার অধ্যাপক ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন এসব কথা বলেন।

সোমবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) চবির ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদ অডিটোরিয়ামে এ সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন নেপাল বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. ভীম প্রসাদ সুবেদি। অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন চবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার ও চট্টগ্রাম মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. ইসমাইল খান।

চবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক মো. জাকির হোসেনের সভাপতিত্বে সেমিনার সঞ্চালনা করেন সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. অঞ্জন কুমার চৌধুরী। সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য দেন চবি শিক্ষক সমিতির সহ-সভাপতি ও সেমিনার আয়োজক কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ সহিদ উল্যাহ।

অধ্যাপক ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন বলেন, বাংলাদেশের অনেক শিক্ষক-গবেষকের গবেষণা কর্ম আন্তর্জাতিক পর্যায়ে স্থান পেয়েছে। যা তরুণ শিক্ষক-গবেষকদের জন্য উৎসাহের। আধুনিক ও বিজ্ঞানমনস্ক দক্ষ মানবসম্পদ তৈরিতে ভূমিকা রাখতে হবে এসব গবেষকদের। বিশ্ববিদ্যালয় আইন যথাযথ অনুসরণ করে মানসম্মত সিলেবাস প্রণয়নের মাধ্যমে শিক্ষা ও চুড়ান্ত লক্ষ্য অর্জন সম্ভব।

বিশেষ অতিথি নেপালের বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. ভীম প্রসাদ সুবেদি বলেন, ‘উচ্চ শিক্ষা, গবেষণা ও নিজেদের শিক্ষা ব্যবস্থায় বাংলাদেশ সরকারের নেওয়া উদ্যোগ প্রশংসনীয়। সম্ভাবনাময় এ দেশে শিক্ষাব্যবস্থা যদি সঠিকভাবে কাজে লাগানো যায় তাহলে অল্প সময়ের ব্যবধানে বাংলাদেশ বিশ্বের উন্নত দেশগুলোর তালিকায় থাকবে।’

বাংলাদেশ সময়: ২১৫০ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০২০

এমএ/টিসি



[ad_2]

Source link

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply