এই নারীদের কেন জেলে আটকে রেখেছে সৌদি সরকার?

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

সৌদি আরবের রক্ষণশীল সমাজে যখন প্রথমবারের মতো নারীদের গাড়ি চালানোর অধিকার দেওয়া হল তখন যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের নেতৃত্বাধীন সরকারের ভূয়সী প্রশংসা করা হয়েছিল।

সৌদি আরবে নারীদের গাড়ি চালানোর অনুমতি দেওয়া হয়েছে দু’বছর আগে। কিন্তু এই অধিকারের জন্য সে সময় যারা আন্দোলন করছিলেন, তাদের অনেকেই এখনও কারাগারে আটক রয়েছেন।

তাদের পরিবার অভিযোগ করছেন, বন্দিদের অনেকেই নির্যাতন ও নানা ধরনের যৌন সহিংসতার শিকার হচ্ছেন।

তাদের মধ্যে একজন লুজাইন আল-হাথলুল। তিনি বলেন, ‘মেয়েদের গাড়ি চালানোর আন্দোলনের সমর্থনে আমি আমার নিজের গাড়ি চালাচ্ছি, কিন্তু আমিরাতের ড্রাইভিং লাইসেন্স ব্যবহার করে।’

লুজাইনকে ২০১৮ সালের মে মাসে গ্রেফতার করা হয়। ওই একই বছর নারীদের গাড়ি চালানোর অনুমতি দেওয়া হয়।

অতি রক্ষণশীল সৌদি আরবে এই সংস্কারের জন্য ব্যাপক প্রশংসিত হলেও আটকের দুই বছর পরও মুক্তি পাননি এই আন্দোলনকারীরা।

নারীদের গাড়ি চালানোর স্বাধীনতাই যদি দেবেন তাহলে কেন শীর্ষ আন্দোলনকারীদের একজনকে এখনও কারাগারে আটকে রাখবেন?

এ বিষয়ে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান বলেন, ‘এই বিষয়টির সঙ্গে এর (আটক) কোনও সম্পর্ক নেই। শুরুতেই আমি যেমনটা বলেছি সৌদি আরবের আইনের প্রতি অবশ্যই সম্মান দেখাতে হবে। এর সঙ্গে আমরা একমত হই বা না হই। কিংবা এর সঙ্গে ব্যক্তিগতভাবে একমত হই বা না হই।’

লুইজানের পরিবারের অভিযোগ, আটক থাকা অবস্থায় তার ওপর নির্যাতন হয়েছে। শুধু নির্যাতন করার জন্যই তার ওপর নির্যাতন হয়েছে।

লুইজান আল-হাথলুলের ভাই ওয়ালিদ আল-হাথলুল বলেন, ‘একদিন শেকল বাঁধা অবস্থায় লুইজানকে টেনে হিঁচড়ে মাটির কয়েক তলা নিচে এক কামরায় নিয়ে যাওয়া হয়। সে বুঝতে পারছিল না তাকে কোথায় নেওয়া হচ্ছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সেখানে একটা ঘরের মধ্যে একজনকে ডাকা হয়। গলার স্বর শুনে লুইজান একজন বৃদ্ধকে চিনতে পারে, যে এর আগে নির্যাতন করার সময় তাকে ধর্ষণ করার হুমকি দিয়েছিল।’

সৌদি যুবরাজ অভিযোগটি তদন্ত করে দেখার আশ্বাস দিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘আমরা এখনও তদন্তের ফলাফলের অপেক্ষা করছি।’

এদিকে সরকারি নিয়ন্ত্রণাধীন সংবাদ মাধ্যমে এই নারীদের বিশ্বাসঘাতক নামে ডাকা হয়।

ইউরোপিয়ান সৌদি অর্গানাইজেশন অব হিউম্যান রাইটসের আলী আদুবিসি বলেন, ‘শুধু তাদের কর্মকাণ্ডের জন্যই এদের আটক করা হয়নি। আমার বিশ্বাস এদের এখনও আটক রাখার মধ্য দিয়ে সৌদি আরবের নারীদের আন্দোলনকারীদের একটি স্থায়ী হুঁশিয়ারি দেওয়া হচ্ছে যে এসব নারীর মতই তোমাদের ভাগ্যেও একই ব্যাপার ঘটবে।’

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply