কক্সবাজারে ঈদ জামাতে করোনা থেকে মুক্তির প্রার্থনা

কক্সবাজার জেলায় ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যতার মধ্য দিয়ে উদযাপিত হচ্ছে পবিত্র ঈদুল আজহা। করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ পরিস্থিতিতে সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী এবার কক্সবাজার জেলার উন্মুক্ত স্থানে বা ঈদগাহে ঈদুল আজহার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়নি। স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদ জামাতের আয়োজন করা হয় মসজিদে।

বুধবার (২১ জুলাই) সকাল ৮টায় কক্সবাজার কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দান জামে মসজিদে প্রধান ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়। নামাজে ইমামতি করেন কক্সবাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খতীব মাওলানা মাহমুদুল হক। এছাড়া সকাল সাড়ে ৮টায় দ্বিতীয় জামাতে ইমামতি করেন মসজিদটির ইমাম মাওলানা কাইয়ুম। ঈদের জামাতে জেলাব্যাপী মসজিদে মসজিদে করোনা মহামারি থেকে মুক্তির জন্য বিশেষ প্রার্থনা করা হয়।

নামাজের আগে জেলাবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক এড. সিরাজুল মোস্তফা ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. আমিন আল পারভেজ।

জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ বলেন, ‘করোনা মোকাবিলায় ও সংক্রমণ বিস্তার রোধে সরকারের নির্দেশনায় এবারও খোলা মাঠে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়নি। জেলাব্যাপী ঈদুল আজহার জামাত অনুষ্ঠিত হয় মসজিদের ভেতরে শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে।’

জেলা প্রশাসক আরও বলেন, এই ক্রান্তিলগ্নে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার অনুরোধ করছি। পরিবার ও সমাজের জন্য সচেতন হোন। অবহেলা করে বিপদ ডেকে আনবেন না। ইনশাল্লাহ সবার ঐক্যবদ্ধ প্রয়াসে পৃথিবী থেকে মুক্তি নেবে করোনা মহামারী। আবারও সবাই প্রাণ খুলে হাসবে। হাতে হাত কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে উন্নত ও সমৃদ্ধশালী দেশ গঠনে আত্মপ্রত্যয়ী হবে।

জেলায় পৃথক পৃথক মসজিদে একাধিক ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়। নামাজ শেষে দেশ ও জাতির সমৃদ্ধি এবং করোনা মহামারি থেকে মুক্তির জন্য বিশেষ মোনাজাত করা হয়।

পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে হাসপাতাল, জেলখানা ও সরকারি শিশু পরিবারে উন্নত মানের খাবারে ব্যবস্থা করা হয়। জেলাজুড়ে করোনার উদ্বেগের মধ্যেও ত্যাগের মহিমায় উদযাপিত হচ্ছে পবিত্র ঈদুল আজহা।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply