ঘুমন্ত স্ত্রীকে তালা মেরে ফিরে পেলো দগ্ধ লাশ

নারায়ণগঞ্জ সদর :

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লায় ঘুমন্ত অবস্থায় স্ত্রী সম্পা আক্তারকে তালা মেরে বাইরে নামাজ আদায় করতে গিয়েছিলেন স্বামী সুমন মিয়া। ওই সময়েই ঘটে অগ্নিকান্ডের ঘটনা। আগুনে পুড়ে যায় ওই ঘর সহ অন্তত ২০টি বসত ঘরে। অন্য ঘরের সকল আসবাবপত্র পুড়ে ছাই হয় আর মারা যায় ঘুমন্ত থাকা সম্পা আক্তার। বাইরে থেকে তালাবদ্ধ থাকায় বের হতে পারেননি তিনি।

গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় ফতুল্লার মুসলিমনগর এলাকার ইউনুছ সর্দারের টিনের দু’তলা বাড়িতে রহস্যজনক এ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাহী অফিসার নাহিদা বারিক সহ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

নিহত সম্পা আক্তার (২০) ও সুমন মিয়া দু’জনেই গার্মেন্টসে কাজ করেন। ওই বাড়ির নিচ তলায় তারা ভাড়া থাকতেন। সম্পা আক্তার মুন্সিগঞ্জ জেলার লৌহজং থানার পলমা গ্রামের সোহরাব মিয়ার মেয়ে এবং সুমন জামালপুর জেলার মাদারগঞ্জ থানার ফৈটামারী গ্রামের বাসিন্দা। এক বছর পূর্বে তাদের বিয়ে হয়েছে। বিয়ের পর থেকে তারা ফতুল্লার এই বাড়িতে বসবাস করে গার্মেন্টসে কাজ করেন।

ফতুল্লার বিসিক ফায়ার স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার মোঃ কাজল মিয়া মিডিয়াকর জানান, শুক্রবার মাগরিবের নামাজের সময় ওই বাড়ির নিচ তলার ভাড়াটিয়া সুমন মিয়া তার গার্মেন্টকর্মী স্ত্রী সম্পা আক্তারকে ঘরে ঘুমন্ত অবস্থায় রেখে বাহির থেকে দরজায় তালা দিয়ে মাগরিবের নামাজ পড়তে মসজিদে যায়। এর কিছুক্ষণ পরই সুমনের ঘর থেকে আগুন ধরে পুরো বাড়ি ছড়িয়ে পড়ে। এসময় সম্পা ঘরেই দগ্ধ হয়ে মারা যায়। পরে তার লাশ উদ্ধার করে শহরের জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়।

তিনি আরো জানান, খবর পেয়ে দুইটি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে ৪০ মিনিটে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। আগুন লাগার কারণ ও ক্ষতির পরিমাণ নির্ণয়ে তদন্ত চলছে।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply