চট্টগ্রামে নগরীতে ব্যাংকে ঢুকে ভল্ট ভাঙার চেষ্টা – bdnews24.com

[ad_1]

তবে ভল্টে রাখা টাকা
লোপাট হয়েছে কি না সে বিষয়ে এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি বলে ডবলমুরিং থানার ওসি সদীপ কুমার
দাশ জানিয়েছেন।

শনিবার দুপুরে নগরীর
ধনিয়ালাপাড়া এলাকায় জিলানী মার্কেটে অবস্থিত ইউসিবি কদমতলী শাখার গেইটের তালা ভেঙে
দুর্বৃত্তরা ভেতরে ঢুকেছে বলে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ।

পরে সিআইডির ক্রাইম
সিন ইউনিট ও ব্যাংকের কর্মকর্তারা এলে তাদের নিয়ে বিকালে ব্যাংকের ভেতরে প্রবেশ করে
ভল্ট ভাঙার চেষ্টার প্রমাণ পাওয়ার কথা জানান পুলিশ কর্মকর্তারা।

চট্টগ্রাম নগর পুলিশের
পশ্চিম জোনের উপ-কমিশনার ফারুকুল হক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ব্যাংকের মেইন
গেইটে থাকা দারোয়ান অচেতন অবস্থায় ছিল এবং দুটি তালা কাটা অবস্থায় পড়ে ছিল।

“ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন
কর্মকর্তাদের নিয়ে ভেতরে প্রবেশের পর সেখানে ভল্ট ভাঙার চেষ্টার প্রমাণ পেয়েছি। অন্যান্য
আসবাব ঠিক দেখা গেছে।”

ব্যাংকের সিসি ক্যামেরার
ভিডিও রেকর্ডারের হার্ড ডিস্ক পাওয়া যায়নি বলে জানান তিনি।

এই পুলিশ কর্মকর্তা
জানান, ব্যাংকের ভেতর পুলিশ সদস্যরা প্রবেশের পর কর্মকর্তাদের দিয়ে ভল্টটি খোলার চেষ্টা
করেও তা খোলা যায়নি।

“সে কারণে ভল্ট থেকে
আসলে কোনো টাকা খোয়া গেছে কি না তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। ঢাকা থেকে ব্যাংকটির
কর্মকর্তারা আসছেন, তাদের উপস্থিতিতে খুলে দেখার পর টাকার বিষয়টি বলা যাবে।”  

ব্যাংকের ভল্ট পরীক্ষা
না করা পর্যন্ত ওই অফিসে পুলিশি নিরাপত্তা থাকবে বলেও পুলিশ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

ধনিয়ালাপাড়া এলাকার
বায়তুশ সরফ মাদ্রাসা সংলগ্ন জিলানি মার্কেট নামের পাঁচতলা ভবনের দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলায়
ইউসিবির কদমতলী শাখার অবস্থান। সাপ্তাহিক ছুটির দিন শনিবার ব্যাংকও বন্ধ ছিল।

ভবনটি ঘুরে দেখা যায়,
নিচতলায় যন্ত্রাংশের দোকান এবং চতুর্থ তলায় মেটলাইফ ইনসুরেন্স কোম্পানির অফিস রয়েছে।
আর পঞ্চম তলায় বাড়ির মালিকের গাড়িচালকসহ কয়েকজন ‘ব্যাচেলর’ ভাড়া থাকতেন।

ডবলমুরিং থানার ওসি
জানান, দুপুরের পালার নিরাপত্তাকর্মী ব্যাংকের গেইটে এসে ওই সময় দায়িত্বরত নিরাপত্তাকর্মী
নওশাদ মিয়াকে (৪৩) অচেতন অবস্থায় দেখতে পায়। তখন তিনি ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের
বিষয়টি অবহিত করেন। পরে ব্যাংকের কর্মকর্তারা পুলিশে খবর দেন।



[ad_2]

Source link

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply