“চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের এথলেট জাহেদ আগামীর অনুপ্রেরণা”

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক :

ছোটবেলা থেকে স্বপ্ন দেখতেন খেলাধুলার মাধ্যমে নিজেকে তুলে ধরার। নিজের দুরন্তপনা ও খেলার প্রতি প্রবল আগ্রহের কারণে শিক্ষা জীবনের প্রথম বছরেই তিনবার স্কুল পাল্টাতে হয়েছিল তার।

শৈশব-কৈশোরে অসংখ্যবার রাতের বেলা বাবার ভয়াবহ শাস্তি অপেক্ষা করছে জেনেও মাঠে দাপিয়ে বেড়াত । যদিও সে জানে বাবার হাতের এই মারগুলোই তাকে এতটা পথ এগুতে সাহায্য করেছে।তাইতো বাবা দিবসে লিখেছিল-“তোমার প্রতিটি বেত্রাঘাতই আমার জীবনের মেরুদণ্ডের এক একটি কশেরুকা।”

বলছি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের শিক্ষার্থী আবু জাহেদের কথা। কোন ধরনের লক্ষ্য ছাড়াই তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে কেন্দ্রীয় ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে জনপ্রিয় অ্যাথলেট বনে গেছেন।

আবু জাহেদ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় ২০১৭ সালে ৪ টি ইভেন্টে প্রথম হয়ে হল চ্যাম্পিয়ন নির্বাচিত হন। ২০১৮ সালেও রিলেসহ ৪টি ইভেন্টে প্রথম এবং ২০১৯ সালে রিলেসহ ৫টি ইভেন্টে প্রথম হয়ে হল চ্যাম্পিয়ন নির্বাচিত হন।

কেন্দ্রীয় পর্যায়ে ১ম বছরেই গোলক নিক্ষেপে ১ম হন তিনি আর পরের বছর চাকতি নিক্ষেপে ২য় এবং ২০১৯ সালে চাকতি নিক্ষেপে ১ম এবং গোলক নিক্ষেপে ২য় হন। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় সবমিলিয়ে ২০টিরও অধিক পদক লাভ করেন।

এথলেট জাহেদ

এছাড়া ২০১৯ সালে চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থা (CJKS) আয়োজিত প্রতিযোগিতায় চাকতি ও গোলক নিক্ষেপে দ্বিতীয় স্থান দখল করেন। আর প্রাণীবিদ্যা বিভাগ ফুটবল টুর্নামেন্টে ম্যান অব দ্যা ফাইনাল, সর্বোচ্চ গোলদাতা এবং ম্যান অব দ্যা টুর্নামেন্টের পুরস্কারও নিজের দখলে রাখেন তিনি।

অন্যদিকে পড়াশোনায় প্রথম সারিতে নিজের অবস্থান ধরে রেখেছেন।বিভিন্ন সরকারি এবং বেসরকারি বৃত্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে তিনবার ট্যালেন্টপুল সহ মোট সাতবার বৃত্তি লাভ করেন। এছাড়া মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষাতেও রেখেছেন কৃতিত্বের স্বাক্ষর।

আবু জাহেদের বাড়ি কক্সবাজার সদর উপজেলার খুরুস্কুল ইউনিয়নের মনু পাড়া গ্রামে। তিনি আবুল ইউসুফ ও রেনু আরা বেগমের বড় সন্তান।গ্রামের স্কুলেই প্রাথমিক শিক্ষাপর্ব শেষ করে ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে কক্সবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হন৷ সেখানেও এথলেট হিসবে জনপ্রিয় বনে যান৷ লাভ করেন অসংখ্য পুরস্কার। হয়ে উঠেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মধ্যমণি। ২০১২ সালে এস.এস.সি পাশ করে ভর্তি হন কক্সবাজার জেলার শ্রেষ্ঠ বিদ্যাপীঠ কক্সবাজার সরকারি কলেজে৷

তবে ছোট বেলায় বড় কোন খেলোয়াড় হওয়ার স্বপ্ন থাকলেও মা-বাবা চাইতেন পড়া-শোনাটাই ভালো করে করুক। ফলে আর সেভাবে খেলোয়াড় হয়ে উঠেনি জাহেদের।

এখন তিনি তার তার লক্ষ্য পূরণে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। পাশাপাশি নানা ধরনের খেলায়ও নিজের অবস্থান ধরে রেখেছেন। অবসরে বই পড়তে এবং বন্ধুদের সাথে ঘুরতেই বেশি পছন্দ করেন।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply