চাকরির নামে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন উখিয়ার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যন বেবি

সিবিএল২৪ ডেস্কঃ

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এনজিওতে চাকরি দেয়ার নামে বেকার উখিয়া উপজেলার বেকার যুবক-যুবতীদে
কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন উপজেলার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কামরুন্নেসা বেবি। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বেবির বিরুদ্ধে সংসদ সদস্য, জেলা প্রশাসক ও উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার এই ধরনের একাধিক লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন ভূক্তভোগী একাধিক তরুন তরুনী।

কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এনজিওতে চাকরি দেয়ার নামে বেকার তরুন তরুনীরা অভিযোগ করেছেন এনজিওতে চাকরি দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ১ লাখ থেকে ৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত আত্মসাৎ করেছেন। টাকা দিয়েও মাসের পর মাস চাকরি না পেয়ে ঐব চাকরীপ্রার্থীরা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যনের কাছে গেলে তাদের নাজেহাল করা হচ্ছে। মোবাইলে যোগাযোগ করলে তাদের নাম্বারও ব্লক করে দেয়া হচ্ছে। উখিয়ার মরিচ্যাবাজারের মরিয়ম বেগম নামের এক তরুনী অভিযোগ করেছেন, চাকরীর জন্য তিনি মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বেবির সাহায্য চান। বেবি ৭ দিনের মধ্যে ব্রাক এনজিওতে চাকরি পাইয়ে দিবে শর্তে ১ লক্ষ টাকা দাবি করেন। মরিয়ম তার স্বর্ণ বিক্রী করে চাকরি দেয়ার শর্তে ৩০ টাকা তার এক আত্মিয়ের মাধ্যমে মহিলা ভাইস চেয়াম্যানকে দেন। টাকা দিয়েও গত ৭ মাস ধরে তার কোন চাকরি হয়নি। তিনি টাকা ফেরত চাইতে গেলে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান তাকে নানা অযুহাত দেখাতে থাকেন। মোবাইলে যোগাযোগ করতে চাইলে তার নাম্বারটিও ব্লক লিস্টে ফেলে দেয়া হয়।

তরুনীটি আরো জানান এই বিষয়টি তিনি প্রথমে লিখিত ভাবে সংসদ সদস্য শাহিন আক্তার ও সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুর রহমান বদিকে জানান। তারা দুজনেই লিখিত অভিযোগ দিতে বলেন। সংসদ সদস্যের পরামর্শে তিনি বিষয়টি লিখিত ভাবে অভিযোগ করেছেন। একই অভিযোগ তিনি জেলা প্রশাসক ও উখিয়ার উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে দিয়েছেন।

জালিয়া পালং এর আবছার উদ্দিন নামের আরেক বেকার যুবক জানান একটি এনজিওতে চাকরি দেয়ার নামে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বেবি গত ডিসেম্বরে তারকাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা নিয়েছেন। চাকরিতো দূরের কথা এখন ফোন করলেও তিনি ধরছেননা।

উখিয়ার এই মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে চাকরি দেয়ার নামে অসংখ্য বেকান যুবকের কাছথেকে লক্ষ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। উখিয়ার প্রায় ২ শতাধিক বেকার যুবক যুবতি এই জনপ্রতিনিধির কাছে প্রতারিত হয়েছেন বলে জানাগেছে।

এছাড়াও এনজিওর গ্যাসের সিলিন্ডার দেয়ার কথা বলে রাজাপালং ইউনিয়নের এক সাবেক মহিলা মেম্বারের কাছথেকে ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়া অভিযোগ আছে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বেবির বিরুদ্ধে। এ ছাড়াও এনজিওর টিউব ওয়েল দেয়ার নামে অনেক মানুষের কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা করে হাতিয়ে নিয়েছেন এই বিতর্কিত নারী জনপ্রতিনিধি।

এই বিষয়ে উখিয়ার ভাইস চেয়ারম্যান কামরুন্নেছা বেবি বলেন এইসব অভিযোগ মিথ্যা। তিনি কারো কাছে কোন টাকা নেননি। একটি মহল তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply