জনতাবাজার রোডে ফের টমটম এক্সিডেন্ট, কলেজ ছাত্রীসহ আহত; ৫।


মহেশখালী প্রতিনিধি

মহেশখালী উপজেলার বড় মহেশখালী রাস্তার মাথা বাজারস্থ স্থানে টমটম ও ট্রাকের দ্বিমুখী সংঘর্ষে মহেশখালী বঙ্গবন্ধু মহিলা কলেজের ৪ জন ছাত্রী গুরুতর আহত হয়েছে। আহতরা হলেন- হোয়ানক ইউনিয়নের পূর্ব পূইছড়া এলাকার নওশীন (১৮), একই এলাকার ফোরকানের মেয়ে বেবি আকতার (১৮), কেরুনতলী এলাকার ঊষা (১৭) ও ডেইল্লাঘোনা এলাকার কৃষক সরওয়ার কামালের মেয়ে রূপসী (১৭) গুরুতর আহত হয়। এছাড়াও আহত হয় টমটমের ড্রাইভার।

জানা যায়, আজ ২৬ সেপ্টেম্বর (রবিবার) বিকাল- ২.৩০ টার সময় কলেজ শেষে টমটম যোগে বাড়ি ফেরার পথে অপর দিক থেকে আসা ট্রাকের সাথে সংঘর্ষ হয়। এতে তারা গুরুতর আহত হয়। আহতদের মাথায়, হাতে, বুকে এবং পায়ে মারাত্মক জখম হয়। প্রত্যক্ষদর্শীরা এসে ঘটনাস্থল থেকে আহতদের দ্রুত উদ্ধার করে মহেশখালী হাসপাতালে নিয়ে যায়। দু’জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত ডাক্তার আহতদের কক্সবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করে।

ঘটনাস্থলে থাকা ছাবের হোসেন নামের এক ব্যক্তি জানান, রাস্তার দু’পাশে বেআইনি গাড়ি পার্কিং, অদক্ষ গাড়িচালক ও যথাযথ স্পীড ব্রেকার না থাকায় প্রতিনিয়ত ঘটছে অহরহ দুর্ঘটনা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা অভিযোগ করেন- কমবয়সী, অদক্ষ, লাইসেন্সবিহীন চালকদের বেপরোয়া গাড়ি চালানোর ফলে টমটম কেঁড়ে নিচ্ছে অসংখ্য মানুষের জীবন। আজ কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থী, কাল স্কুল পড়ুয়া, পরশু মাদ্রাসার শিক্ষার্থী, পরের দিন পথচারী এভাবে ঘটছে অহরহ দুর্ঘটনা। এরপরও ঘাতক টমটমের লাগাম টানতে কোন পদক্ষেপ নিচ্ছেনা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। যার কারণে প্রতিনিয়ত বাড়ছে রোড এক্সিডেন্ট।

চল্লিশ উর্ধ্ব একজন সিএনজি চালক জানান, কমবয়সী হওয়ায় টমটম চালকরা তরুণী যাত্রী উঠলেই নিজেদের পাইলট মনে করে।বেপরোয়াভাবে ওভারটেকিং করে। এছাড়াও তিনি জানান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বাজারের প্রবেশমুখ এবং প্রতি মোড়ে মোড়ে এবং ঝুঁকিপূর্ণ রাস্তার বাঁকে বাঁকে স্পীড ব্রেকার থাকলে অনেকটা নিরাপদ থাকবে জনজীবন। এড়ানো যাবে জীবন হন্তারকের মতো মারাত্মক এক্সিডেন্ট।

 

সাইফুল

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply