টমটমের ধাক্কায় গুরুতর আহত স্কুল থেকে বাড়ি ফেরা ১ শিশু ।

উপকূলীয় প্রতিনিধি ঃ

দীর্ঘদিন পর স্কুল খোলায় হেলেদুলে নেচে গেয়ে উচ্ছ্বাসের সাথে স্কুলে আসা যাওয়া করছে শিশুরা। প্রাণের উচ্ছ্বাসে রোড এক্সিডেন্ট প্রকটভাবে বাঁধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে কোমলমতি শিশুদের জন্য।

ত্রি-চক্রযান টমটমে এক্সিডেন্ট ঘটে মহেশখালীর কালারমারছড়া আল আমিন মডেল একাডেমীর নার্সারির ছাত্র রাফসান (৮) গুরুতর আহত। মিজ্জিরপাড়া হাজিরছড়া এলাকার নছিম ও কহিনুর খানমের পুত্র রাফসান স্কুল শেষে ১১.৩০ টায় বাড়ি ফেরার পথে টমটমের সাথে ধাক্কা লাগে তার। এতে মাথায় এবং ঠোঁটের নিচে মারাত্নক জখম হয়। রাস্তার স্পীড ব্রেকার না থাকায় প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা। জনতা বাজার টু গোরকঘাটা প্রধান সড়কে স্পীডব্রেকারই প্রধান দায়ী বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।

তার উপর কম বয়সী,অদক্ষ,লাইসেন্সবিহীন চালকদের বেপরোয়া টমটম কেঁড়ে নিচ্ছে ছোট,বড়,বৃদ্ধার জীবন। আজ স্কুল পড়ুয়া ছাত্র, কাল বয়স্ক মহিলা এভাবে ঘটছে দুর্ঘটনা। হন্তারক টমটমের লাগাম টানতে কোন পদক্ষেপ নিচ্ছেনা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ অভিযোগ সচেতন মহলের।

স্থানীয় সাবেক এমইউপি নুরুল ইসলাম জানান, স্পীড ব্রেকার না থাকায় পূর্বের তুলনায় বাড়ছে রোড এক্সিডেন্ট। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বাজারের প্রবেশমুখ এবং প্রতি মোড়ে মোড়ে স্পীড ব্রেকার থাকলে অনেকটা এড়ানো যাবে জীবন হন্তারকের মতো এক্সিডেন্ট।

একাডেমীর প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ ইউনুস জানান, প্রধান সড়কের হাঁটাচলার জায়গায় রাখা হচ্ছে বাঁশ,গোবর। যার কারণে ছাত্র ছাত্রীদের হাঁটাচলায় বেকায়দায় পড়তে হচ্ছে। দ্রুত প্রশাসনকে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ জানান তিনি।

স্হানীয় হসপিটালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে চকরিয়া হাসপাতালে প্রেরণ করা হয় আহত শিশুকে। এমনটাই জানিয়েছেন স্থানীয় চিকিৎসক।

 

সাইফুল

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply