“ত্রাণ দে নবাবজাদা, নইলে মাস্ক চিবিয়ে খাবো” ; কক্সবাজারে WFP এর ত্রাণ ফ্যাক্ট

আ ন ম হাসান, বিশেষ প্রতিনিধি সিবিএল২৪ঃ

WFP এর পক্ষ হতে দেওয়া স্বজনপ্রীতির প্রশ্ন উঠা WFP-এর প্রচারনার ট্যাকনিক হিসেবে তিন চার স্থরে বিতরণের নামে জনসাধারণের অসহায়ত্বকে পুঁজি করে উপহাসের পাত্র হিসেবে উপস্থাপন করা, ইতিহাসের পাতায় স্থান দখলে যাওয়া ত্রাণের ১ম কিস্তি কবে পাবো বা পেতে পারি কেউ কি বলতে পারেন ?

ত্রাণের প্যাকেটটি ধরে ফটোসেশনের আমার খুব শখ জেগেছে মনে মনে ৷ স্বপ্ন আর আশা নিয়ে বেঁচে থাকা জাতী তো, শখ তো জাগতেই পারে ৷ ছবিতে এসে প্রমান করতে ইচ্ছে জেগেছে, আমি ত্রাণ পাওয়ার খাওয়ার পারফেক্ট উপযোগী এক হিউম্যান! উপযোগী না বা হ্যাঁ তা নীতিনির্ধারণী মহল ভেরিফাই করবে ৷ পোস্টের মাঝখানে এসে বিচক্ষণ এই প্রিয় Aziz Shikder এস.এম রুবেল এম বশির উল্লাহ Mohammad Shahab Uddin Abul Bashar Parvej মাহবুব রোকন ভাইলোক গুলা প্রশ্ন করতে পারে- “তুমি কেনো ছবিতে আসবা ? সবার সামনে ত্রাণ নিবা ?

তোমার একটা প্রেস্টিজ আছেনা! প্রেস্টিজকে ইস্যু করিওনা তো ! প্রশ্নের আগাম উত্তর যদি হয় এমন- যেখানে কিছুসংখ্যক বড়ভাইদের বিপরীতে (শব্দটি-বিপক্ষে হবেনা) স্বজনপ্রীতি, দূর্নীতি, ছলচাতুরি ইত্যাদির অভিযোগ আসা (শব্দটি-থাকা হবেনা) সত্বেও কোন জড়তা ছাড়াই বীরদর্পে ত্রাণ বিতরণ করতে পারে ৷ অর্ধ মুখে ঢাকা মাস্কের আড়ালে ফটোসেশন করতে পারে, আমি ছোটভাইটা কেনো ত্রাণ নিতে পারবোনা ! তাছাড়া ত্রাণ চাওয়াটা বা পাওয়াটা করোনার সময়ে কারো করুনার প্রত্যাশা করা তো না ৷ এটা অধিকার, শ্রমের বিপরীতে অনেকটা পারিশ্রমিক চাওয়া পাওয়ার হিসেব নিকাশের শামিল ! ফর উদাহরণ সরকার বাহাদুরের “কাবিখা”* প্রকল্পের মতো ৷

তাছাড়া বাংগালীরা খয়রাতি গ্রহণ করা জাতি! স্বাধীনতা পরবর্তী সময় হতে যেখানে রাষ্ট্র বীরদর্পে ভিন্ন দেশ হতে প্রকাশ্যেই খয়রাত গ্রহণ করে থাকে ৷ বন্ধু প্রতিবেশীরা খয়রাতি জাতীর উপাধি দিলেও কোন উচ্চবাচ্য ব্যাতীত আমরা সয়ে থাকি সত্যটাকে সম্মান জানিয়ে ! ( এটা ইতিবাচক) “তার মানে জাতী শিক্ষা পেলো সত্য সবসময় সুন্দর” ভিন্ন পথে ভিন্ন উপায়ে কিছু গ্রহণ করা বা দেওয়ার আমি ঘোর বিরোধী ৷ বিবেকে কেমন জানি বাঁধা দিয়ে বলে উঠে- ঐটা দেনেওয়ালাদের ব্যার্থতার স্পষ্টতা, গ্রহণ করনেওয়ালাদের অসহায়ত্বের প্রতিচ্ছবি, যেখানে কোন আত্মতৃপ্তি নেই! মনে আছে- স্যার দিয়াগো ম্যারাডোনার সেই ইশ্বরের হাতে গোল করাটা যেমন ঐতিহাসিক নেতিবাচক আলোচনাতে চলে আসে, তেমনিভাবে আত্মতৃপ্তির বিপরীতে ম্যারাডোনাকেও অপরাধবোধের কাঠগড়ায় দাড়াতে বাধ্য করে স্বীকার করুক বা না করুক ৷

দেওয়া নেওয়ার ব্যাপারে ভিন্নতার আশ্রয় না নিতে, স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদরা বলেছেন ৷ জাতীর পিতা জোর দিয়ে আমাদের উপদেশ দিয়ে গেছেন ৷ “পেটে থাকলে পিঠে সই”

[ থিংক পজেটিভ ]

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply