দুধে ‘পবিত্র’ হলো আওয়ামী লীগের ৬ কার্যালয়

[ad_1]

যশোর-৬ কেশবপুর আসনের প্রয়াত এমপি ও সাবেক জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক সমর্থিত ছাত্রলীগের নেতাদের দখলকৃত রাজনৈতিক কার্যালয়গুলো দখলমুক্ত করে দুধ দিয়ে ধুয়ে পবিত্র করা হয়েছে। ৬টি কার্যালয় ধুতে ৪৯ লিটার গরুর দুধ ব্যবহার করা হয়েছে।

১৮ ফেব্রুয়ারি, মঙ্গলবার দুপুরে পৃথকভাবে এ অভিযান চালায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ ও পুলিশ।

উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রাবেয়া ইকবাল জানান, আওয়ামী লীগের সাবেক শিক্ষামন্ত্রী এএইচএসকে সাদেকের সহধর্মিনী ২০১৪ সালের কেশবপুর আসন থেকে নির্বাচিত হন। এরপর তিনি সরকারের জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রীও হন। তার ছত্রছায়ায় থাকা ছাত্রলীগের কতিপয় নেতাকর্মী ‘হাতুড়ি ও গামছা বাহিনী’ নামে পরিচিতি লাভ করে। তারা উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের নিচে কৃষক লীগের অফিসটি দখলে নিয়ে মাছের ঘের দখল, মাদক ব্যবসা ও সেবন, চাঁদাবাজি কর্মকাণ্ড পরিচালনা করছিল। গত ২১ জানুয়ারি তার মৃত্যুতে কেশবপুর আসনটি খালি হয়। এরপর গত ১৫ ফেব্রুয়ারি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদারকে যশোর-৬ (কেশবপুর) সংসদীয় আসনের উপ-নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী করায় গা ঢাকা দেয় হাতুড়ি ও গামছা বাহিনীর সদস্যরা।

তিনি আরো বলেন, মঙ্গলবার দুপুরে পুলিশের উপস্থিতিতে হাতুড়ি বাহিনীর দখলে থাকা কক্ষটি খুলে ধোয়া মোছার উদ্যোগ নেয়া হয়। এ সময় পুলিশ কক্ষটি থেকে ওই বাহিনীর ব্যবহৃত ২টি ধারালো বেকী, ৪টি তলোয়ার, ১টি কিরিচ ও ফেনসিডিলের খালি ৭টি বোতল উদ্ধার করে। এরপর উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগ গরুর দুধ দিয়ে কক্ষটি ধুয়ে মুছে ফেলে। এরপর তাদের দখলে থাকা বিভিন্ন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কার্যালয়ও দুধ দিয়ে ধুয়ে পবিত্র করেছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ।

এর মধ্যে উপজেলা কৃষক লীগের অফিস ধুতে ৫ লিটার, গৌরিঘোনা ইউনিয়নের ভেরচীবাজার আওয়ামী লীগ কার্যালয় ধুতে ১০ লিটার, পাঁজিয়া ইউনিয়নের গড়ভাঙ্গা আওয়ামী লীগ কার্যালয় ধুতে ৫ লিটার, কেশবপুর সদর ইউনিয়নের বালিয়াডাঙ্গা আওয়ামী লীগ কার্যালয় ধুতে ৪ লিটার, সুফলাকাটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ কার্যালয় ধুতে ২০ লিটার ও বিদ্যানন্দকাটি ইউনিয়নের ভান্ডারখোলা আওয়ামী লীগ কার্যালয় ধুতে ৫ লিটার গরুর দুধ ব্যবহার করা হয়েছে।

উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রাবেয়া ইকবাল জানান, উপজেলা কৃষক লীগের যে অফিসটি দখলমুক্ত করে দুধ দিয়ে ধোয়া হয়েছে সেটি আজ (মঙ্গলবার) থেকে উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের কার্যালয় হিসেবে ব্যবহৃত হবে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সেক্রেটারি গোলাম মোস্তফা জানান, উপজেলা নির্বাচনের সময় আওয়ামী লীগ কার্যালয়গুলো থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি অপসারণ করে দলের কিছু উচ্ছৃঙ্খল নেতাকর্মীরা। যে কারণে আবেগের বশবর্তী হয়ে নেতাকর্মীরা কার্যালয়গুলো দুধ দিয়ে ধুয়ে ফেলেছে।

কেশবপুর থানার ওসি মো. সাঈদ বলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গাজী গোলাম মোস্তফার কাছ থেকে খবর পেয়ে ছাত্রলীগের কার্যালয়ে অভিযান চালানো হয়।



[ad_2]

Source link

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply