দুর্ধর্ষ রোহিঙ্গা ডাকাত আব্দুল হাকিমের সন্ধানে ড্রোন নিয়ে র‌্যাবের অভিযান

মো: আব্দুল গফুর :

কক্সবাজারের টেকনাফে অপহরণ, ধর্ষণ, ছিনতাই ও মাদক কারবারে জড়িত রোহিঙ্গা ডাকাত আব্দুল হাকিমের দুর্গম পাহাড়ি আস্তানার খোঁজে ড্রোন উড়িয়ে অভিযান চালিয়েছে র‌্যাব।

শুক্রবার সকাল ৭টায় থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত টেকনাফের বাহারছড়া টইগ্যা পাহাড়সহ বেশ কয়েকটি পাহাড়ে এই অভিযান চালায় র‌্যাব-১৫। এ সময় ড্রোন উড়িয়ে বিভিন্ন পাহাড়ে ডাকাতদের আস্তানার তথ্য সংগ্রহ করেন র‌্যাব সদস্যরা। পাহাড়ে ডাকাতদের কয়েকটি স্থানেও অভিযান চালানো হয়। তবে, র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তপনায় জড়িত রোহিঙ্গারা। অভিযান পরিচালনাকারী র‌্যাব-১৫ অধিনায়ক উইং কমান্ডার আজিম আহমেদ এসব তথ্য জানিয়েছেন।

হাকিম ডাকাতের সন্ধানে ড্রোন অভিযান

অভিযান শেষে উইং কমান্ডার আজিম আহমেদ বলেন, ‘এই পাহাড়ি এলাকায় রোহিঙ্গা ডাকাত হাকিম বাহিনীর অবস্থানের খবর রয়েছে। তারা পাহাড়ি এলাকায় আস্তানা গড়ে তুলে অপহরণ, খুন ও ধর্ষণের মতো অপরাধ করছে। হাকিম বাহিনীর গ্রুপকে ধরতে পাহাড়ে প্রাথমিকভাবে আমরা অভিযান পরিচালনা করলাম।’

তিনি আরও বলেন, ‘এবারই প্রথম র‌্যাবের হেড কোয়ার্টার থেকে ড্রোন এনে পাহাড়ি এলাকায় উড়িয়ে আব্দুল হাকিম ডাকাতের আস্তানা খোঁজার চেষ্টা করেছি। কোন সন্ত্রাসী বাহিনীকে ছাড় দেওয়া হবেনা উল্লেখ করে র‌্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, প্রয়োজনে দুর্গম পাহাড়ি এলাকায় র্যাব হেলিকপ্টারের মাধ্যমে অভিযান পরিচালনা করবে।’

পাহাড়ি আস্তানায় হাকিম ডাকাত ও তার দলবল

বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, রোহিঙ্গা শিবিরকে ঘিরে সক্রিয় ডাকাতের সংঘবদ্ধ সদস্য। ডাকাতি ছাড়াও তারা অপহরণ, ধর্ষণ, ছিনতাই, মাদক কারবারের সঙ্গে জড়িত। এদের মূলহোতা রোহিঙ্গা ডাকাত আবদুল হাকিম। তার মূল আস্তানা ক্যাম্প সংলগ্ন পাহাড়ি এলাকায়।

র‌্যাব সূত্রে জানা গেছে, ক্যাম্প সংলগ্ন পাহাড়ে থাকা ডাকাতরা রোহিঙ্গা ও স্থানীয়দের জিম্মি করে প্রায়ই লুটপাট চালায়। এছাড়া ডাকাত দলের সদস্যরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে রোহিঙ্গাদের বাসায় ঢুকে মালপত্র লুট ও অপহরণ করে। ক্যাম্পের ভেতর বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেও হামলা চালায়।

গত ২০ অক্টোবর রাতে টেকনাফ বাহাছড়া শীলখালী মাঠপাড়া এলাকার ‘হেডম্যান’ আবুল কালামের বসতবাড়ির দরজা ভেঙে স্কুলছাত্রী লাকি ও তসলিমা নামে দুই কিশোরী মেয়েকে অপহরণ করে গহীন পাহাড়ে নিয়ে যায় ডাকাত দলের সদস্যরা। দুই দিন পর তাদের উদ্ধার করা হয়।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply