পেকুয়ায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে ভাতিজাকে মেরে পুলিশে দিল চাচা

কক্সবাজারের পেকুয়ায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে ভাতিজা মোঃ আলমগীরকে (৩০) মেরে পুলিশে দিয়েছে চাচা আলী হোছাইন। আহত ভাতিজা মইয়্যাদিয়া এলাকার আশরাফ মিয়ার ছেলে। মঙ্গলবার (৭জুলাই) বিকেলে পেকুয়া বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

আহত আলমগীরের মা আয়েশা বেগম বলেন, আলী হোছাইন আমার স্বামী আশরাফ মিয়ার ভাই। দীর্ঘদিন ধরে জমি ও পেকুয়া বাজারের দোকান নিয়ে বিরোধ করে আসছিল আলী হোছাইন। জমি ও দোকানঘর জবর দখল করার জন্য একের পর এক মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করেও আসছিল। বিগত প্রায় ১মাস আগে আলী হোছাইনের এক মেয়ে মৃত জহির আলমের ছেলে হুমাইন কবিরের সাথে পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করেন। ওই ঘটনায় একটি মামলা দায়ের করেন আলী হোছাইন। মামলায় মিথ্যাভাবে আসামী করেন আমার টমটম চালক ছেলে মোঃ আলমগীর ও ১৪ বছর বয়সী ছেলে আবছারকে।

সে মামলার ঘটনায় আলী হোছাইন সংঘবদ্ধ সন্ত্রাসীদের নিয়ে গতকাল মঙ্গলবার ( ৭ জুলাই) দুপুরে আমার ছেলেকে পেকুয়া বাজারে ধরে হাতুড়ি পেঠা করে গুরুতর আহত করে। ওই সময় তার চালিত টমটম গাড়িটি ছিনতাই করার পাশাপাশি ব্যাটারী ক্রয়ের জন্য নিয়ে যাওয়া ৬০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেন। একপর্যায়ে তাকে পেকুয়া বাজারের পশ্চিম পার্শ্বে একটি দোকানে তালাবদ্ধ করে রাখে। তালাবদ্ধ ঘরে তাকে তিনঘন্টা নির্যাতন করার পর পুলিশের হাতে তুলে দেন।

নির্যাতনের শিকার মোঃ আলমগীর পেকুয়া বাজারে তালাবদ্ধ অবস্থায় সাংবাদিকদের বলেন, আমি টমটম চালক। আলী হোছাইন আমার চাচা। আজ মঙ্গলবার আমি যাত্রী পরিবহন করে গাড়ি নিয়ে পেকুয়া বাজারে আসামাত্র চাচা আলী হোছাইন পূর্ব শত্রুতার জের ধরে একদল সন্ত্রাসী নিয়ে আমার গাড়িটি প্রথমে ছিনতাই করে। পরে আমার পকেটে থাকা ৬০ হাজার টাকা নিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি আমাকে হাতড়ি পেঠা করে তালাবদ্ধ করে রাখেন। পেকুয়া বাজারে তালাবদ্ধ ঘরে আমাকে নির্যাতন করেন আলী হোছাইন। আমি আসামী হয়েছি ঠিক আছে এভাবে মারার অধিকার আছে কিনা জানতে চাই।

ওই সময় তিনি আরো বলেন, হুমাইন কবির নামে এক ছেলের সাথে ওনার মেয়ে পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করেন। এ বিষয়ে আমরা অবগত নই। তারপরও সে ঘটনায় আমি ও আমার ১৪ বছর বয়সী ভাই আবছারকে মিথ্যাভাবে আসামী করে হয়রানি করার জন্য। অথচ ওনার মেয়ে স্বামী সংসার করছে আমাদের জমি ও দোকানঘর জবর দখল করার জন্য মিথ্যা মামলা দিয়ে কারাগারে পাটাচ্ছে। এ ঘটনাটি সঠিক তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছি।

পেকুয়া থানার এসআই সনজিত বলেন, আলমগীর নামে এক আসামীকে পেকুয়া বাজারে স্থানীয়রা আটক করে রেখেছে খবর পেয়ে তাকে আমরা আটক করে থানায় নিয়ে আসি। কাগজপত্র বিশ্লেষণ করে জানতে পারি আলী হোছাইনের মেয়েকে অপহরণ করার মামলায় সে ২নং আসামী। তাকে মঙ্গলবার বিকেল ৫টার দিকে আদালতে হস্তান্তর করা হয়েছে।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply