প্রেমের কারণে একুল-ওকুল হারালো প্রেমিকা

সিবিএল২৪ :

মেহেরপুর সদর উপজেলার শোলমারী গ্রামের রিষিতা খাতুন একুল-ওকুল দু’কুলই হারালো। শোলমারী গ্রামের ইদ্রিস আলীর মেয়ে মেহেরপুর সরকারি মহিলা কলেজের বিএ এর ছাত্রী রিষিতা খাতুনের পার্শ্ববর্তী রুদ্রনগর গ্রামের বিল্লাল হোসেনের ছেলে আকাশের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে প্রায় ৭ বছর আগে।

তাদের সম্পর্কে ২ বছরের মাথায় পারিবারিক ভাবে রুদ্রনগর গ্রামের আসাদুল ইসলামের ছেলে হুমায়ুনের সাথে বিয়ে হয়ে যায়। বিয়ের মাত্র ৩ দিনের মাথায় তার প্রেমিক আকাশ তাকে বিয়ে করবে বলে আশ্বাস দিলে। রিষিতা তার স্বামীকে তালাক দিয়ে বাপের বাড়িতে চলে আসে।

এরপরে তাদের প্রেম চলতে থাকে। এক পর্যায়ে আকাশ পুলিশে চাকরি পেয়ে রাজশাহীতে যোগদান করেন। এরপর থেকে ফোন আলাপ সহ বাড়িতে আসলে তারা নিয়মিত দেখাশোনা করতে থাকে।

এদিকে আকাশ পুলিশের চাকরি পেয়ে রাজশাহীতে যোগদানের পর থেকেই রিষিতা তার কাছ থেকে আস্তে আস্তে দূরে সরে যেতে থাকে।  সম্প্রতি আকাশ বাড়িতে আসলে রিষিতা তার সঙ্গে দেখা করে। আকাশ রিষিতাকে তাদের বাড়িতে আসতে বলে। গত ২ নভেম্বর রিষিতা আকাশদের বাড়িতে গেলে আকাশ পালিয়ে যায়।  এই সুযোগে আকাশের পরিবারের লোকজন রিষিতার উপর নির্যাতন শুরু করেন।

রিষিতা বিয়ের দাবিতে আকাশের বাড়িতে অনশন শুরু করে। বিষয়টি শেষ পর্যন্ত থানা পুলিশ পর্যন্ত গড়ায়। অনশনের তৃতীয় দিনে তার পিতামাতা গিয়ে রিষিতাকে বাড়িতে নিয়ে আসে।

রিষিতার পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়, মেহেরপুর সদর থানায় বিষয়টি লিখিতভাবে অভিযোগ করলেও মেহেরপুর থানা কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি। ফলে আগামী কাল বুধবার আদালত মামলা দায়ের সকল প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে তার পরিবার।

রিষিতা বলেন, বিয়ে করার পর আকাশের কারণে স্বামী সংসার ছাড়লাম আর এখন সে আমাকে দূরে সরিয়ে দিচ্ছে  আমি তো একুল-ওকুল দু’কুলই হারাল। রিষিতা এর বিচার দাবি করেন।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply