বিএনপির সেই ‘পাগলা রিজভী’ আর নেই

সিবিএল২৪ : কোনো পদ-পদবি নেই, দলের কাছ থেকে কোনো চাওয়া পাওয়াও নেই। তবুও দলের জন্য নিবেদিত এক প্রাণ ছিলেন রিজভী হাওলাদার। বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের কাছে ‘পাগলা রিজভী’ বলে পরিচিত ছিলেন লিকলিকে শরীরের এই যুবক। বিএনপি ও দলীয় প্রধান বেগম খালেদা জিয়াকে অন্তহীন ভালোবাসার মানুষ সেই ‘পাগলা রিজভী’ চলে গেছেন না ফেরার দেশে।

গতকাল শনিবার রাত ১০টা ২০ মিনিটে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিচতলায় অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। পরে ইসলামী ব্যাংক সেন্ট্রাল হাসপাতালে নেয়ার পথে রিজভী মারা যান।

তার মৃত্যুর খবরে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব উন নবী খান সোহেলসহ অনেকে ছুটে যান নয়াপল্টনে। নেতাকর্মীরা দলকে আমৃত্যু নিঃস্বার্থভাবে ভালোবেসে যাওয়া রিজভীর মৃত্যুতে স্তব্ধ হয়ে যান।

রিজভীর জানাজা ও দাফনের বিষয়ে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি বলে ঢাকাটাইমসকে জানিয়েছেন ছাত্রদলের সাবেক দপ্তর সম্পাদক আব্দুস সাত্তার পাটোয়ারি।

রিজভীর গ্রামের বাড়ি পটুয়াখালীর বাউফলের কাছিপাড়া ইউনিয়নে বলে জানা গেছে। তবে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করতেন নারায়ণগঞ্জে। সেখান থেকেই প্রতিদিন সকালে চলে আসতেন প্রিয় দলের কার্যালয়ে। দিনভর থেকে আগত নেতাকর্মীদের সহায়তায় কখনো খেয়ে, কখনো আধপেট খেয়ে দিন কাটাতেন রিজভী। বেশিরভাগ সময়ই দলের ভবিষ্যৎ নিয়ে নিজের চিন্তার কথা যার সঙ্গে সুযোগ পেতেন শেয়ার করতেন। বিশেষ করে বেগম খালেদা জিয়া কারাবন্দি হওয়ার পর তার মুক্তি নিয়ে দুঃশ্চিন্তার শেষ ছিল না তার। গণমাধ্যম কর্মীদের সুযোগ পেলে নিজের ক্ষোভের কথা বলতেন। বিশেষ করে দলের সুবিধাবাদী নেতাদের সমালোচনা করে কথা বলতেন রিজভী। খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য রোজা রাখা, অনশন কর্মসূচিও পালন করেছেন ‘পাগলা রিজভী’। মৃত্যুর আগেও সুবিধাবাদী নেতাদের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তিনি।

ছাত্রদল নেতা আব্দুস সাত্তার পাটোয়ারী ফেসবুক স্ট্যাটাসে রিজভীর মৃত্যুর খবর জানিয়ে বলেন, আজকে সন্ধ্যায় যখন পার্টি অফিস থেকে বের হলাম তখন আমাকে সামনে পেয়ে বিএনপি অন্তপ্রাণ রিজভী ক্ষোভের সাথে বলল, ম্যাডামের জন্য কেউ কিছু করছে না। সব শালারা দালাল। আরো অনেক কথা বলল। তারপর আমি চলে এলাম । কিছুক্ষণ আগে শুনলাম বিএনপি এবং ম্যাডাম খালেদা জিয়ার জন্য অন্তহীন ভালবাসা ধারণ করা রিজভী আমাদের মাঝে আর নেই। আল্লাহ তাকে বেহেশত নসিব করুক।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply