বিদেশি চ্যানেলের পরিবেশক-অপারেটরদের সাধুবাদ জানালেন তথ্যমন্ত্রী

আইন মানায় বিদেশি চ্যানেলের দেশীয় পরিবেশক-অপারেটরদের সাধুবাদ জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

রোববার (৩ অক্টোবর) দুপুরে সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেছেন, ‘প্রথমত আমরা কোনো চ্যানেল বন্ধ করিনি। বন্ধ করার জন্যও বলিনি। বাংলাদেশের আকাশ উন্মুক্ত। এখানে যেকোনো চ্যানেল সম্প্রচার করতে পারে। কিন্তু সেটি দেশের আইন মেনে করতে হয়।’

তথ‌্যমন্ত্রী বলেন, ‘যেকোনো বিদেশি চ্যানেল বিজ্ঞাপনমুক্তভাবে সম্প্রচারের আইন ভারত, নেপাল, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কাসহ, ইউরোপ-আমেরিকার বিভিন্ন দেশে আছে। আইন মেনেই সেখানে বিদেশি চ্যানেল সম্প্রচার করা হয়। শুধু আমাদের দেশেই এ আইনকে বছরের পর বছর ধরে বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করা হচ্ছিল।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা এ আইন বাস্তবায়নের কথা দুই বছর আগে সংশ্লিষ্ট সবাইকে বলেছিলাম। বেশ কয়েকবার তাগাদা দেওয়া হয়েছে, নোটিশ করা হয়েছে। সর্বশেষে আগস্টে সব পক্ষকে নিয়ে বৈঠক করে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করি যে, পয়লা অক্টোবর থেকে আমরা আইন কার্যকর করব। আমরা সেটিই করেছি। কোনো চ্যানেল বন্ধ করা হয়নি। কেউ কেউ বলছে, ডিজিটালাইজড না হওয়া পর্যন্ত এ আইন শিথিল রাখার জন্য। পুরো ভারতবর্ষ তো ডিজিটাল হয়নি। সেসব দেশেও তো আইন কার্যকর আছে। সেখানে ডিজিটাল হওয়ার আগে থেকেই আইন কার্যকর আছে। সুতরাং আমাদের দেশে আইনকে তোয়াক্কা না করে এ ধরনের অজুহাত তোলার কোনো যুক্তি নেই।’

‘আমার কাছে অভিযোগ এসেছে, বিবিসি, সিএনএন, আলজাজিরা, এনএইচকে, ফ্রান্স ২৪, রাশিয়া টুডেসহ প্রায় ২৪টি চ্যানেলের ক্লিনফিড আসে। কিন্তু সেগুলো অনেকে চালাচ্ছেন না, যেটি ক্যাবল অপারেটরের লাইসেন্সের শর্ত ভঙ্গ। কেউ শর্ত ভঙ্গ করলে, সে দায়ে দায়ী হবেন। এ দেশে বিদেশি চ্যানেলগুলোর এজেন্ট আছে। ক্লিনফিডের দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট চ্যানেল এবং এজেন্টের। কিন্তু কোনো কোনো ক্যাবল অপারেটর এজেন্টদের পাশ কাটিয়ে সরাসরি স্যাটেলাইট থেকে এটি পাইরেসি করে ডাউনলিংক করে। অনুমতি ছাড়া ডাউনলিংক করা আইনবহির্ভূত।’

Risingbd

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply