বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন স্টেডিয়াম সড়ক ও হাসপাতাল সড়কে ছিনতাইকারিদের উপদ্রব

মো: আব্দুল গফুর:

কয়েকদিন ধরে শহরের সদর হাসপাতাল সড়ক, জেলা ঈদগাঁহ ময়দান ও বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন স্টেডিয়াম সংলগ্ন অলিগলি ভেতরে ৭টি ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে।
গোপনসুত্রে জানা যায়, সংঘবদ্ধ ছিনতাইকারীরা হাসপাতাল সড়কের এক পানের দোকানদারের কাছ থেকে নগদ টাকা ও ব্যবসায়ের ৩টি মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয় কিছুদিন আগে।
আরও জানা যায়, দু’তিন দিন আগে কক্সবাজার মডেল থানার পেছনের গলিতে রিক্সা আরোহী সাংবাদিক আশিকের রিক্সা গতিরোধ করে ৪জন ছিনতাইকারী তার গলায় ধারালো ছুরি ঠেকিয়ে দামী
মোবাইল ও নগদ অর্থ নিয়ে কেটে পড়ে অন্ধকার গলিতে।
গত সোমবার রাত ১২টার দিকে শহরের জেলা ঈদগাঁহ ময়দানস্থ জামে মসজিদের সামনে ছিনতাইয়ের শিকার হন রিক্সশ চালক কোরবান আলী। ছিনতাইকারীরা ধারালো ছুরি ঠেকিয়ে তার কাছ থেকে সারা দিনের রোজগারের ৭৩০ টাকা ছিনিয়ে নেয় বলে অভিযোগ তার। এ ছিনতাইয়ের ঘটনায় প্রতিদিনের রোজগার রক্ষা করতে গিয়ে ছিনতাইকারীদের ছুরির আঘাতে জখমও হয় রিক্সাচালক কোরবান আলী।
প্রধান সড়ক ও গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলোতে পুলিশী টহল ও নজরদারি বৃদ্ধির কারণে ছিনতাইকারীরা ইদানীং নিরাপদ জোন বেছে নিয়েছে পাড়া-মহল্লার অন্ধকারাচ্ছন্ন অলিগলি। প্রতিদিনই শহরে কোথাও না কোথাও ঘটছে ছিনতাইয়ের ঘটনা। ছিনতাইকারীদের হাত থেকে রেহায় পান না সাধারণ পথচারীও।

বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন স্টেডিয়াম মার্কেটের দারোয়ান আবুল হাশেম জানান, প্রতিদিন সন্ধ্যার পর পর কয়েক ডজন মাদকাসক্ত যুবক স্টেডিয়ামের গ্যালারিতে বসে গভীর রাত পর্যন্ত ইয়াবা সেবনে মেতে উঠে এবং সুযোগ পেলেই স্টেডিয়াম ও সদর হাসপাতাল সংলগ্ন অলিগলিত ছিনতাই করে ভুক্তভোগীদের সর্বসময় কেড়ে নিতে পরোয়া করেনা তারা। এ অপকর্মে বাধা দিতে গেলেই প্রাণনাশের হুমকি দেয় ইয়াবাসক্ত ছিনতাইকারীরা।
বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন সড়ক ও হাসপাতাল সড়কের আশেপাশে ছিনতাইয়ের ঘটনা বৃদ্ধি পাওয়ায় আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন এই সড়কে যাতায়তকারী সাধারণ মানুষ ও সদর হাসপাতেল আগত রোগীর আত্নীয়স্বজন।

ছিনতাইকারীদের দমনে পুলিশ প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন ছিনতাইকারী উপদ্রব এলাকার অধিবাসীগণ।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply