ব্র্যাক কর্মীকে হত্যা করে ৮ লাখ টাকা ছিনতাই

নীলফামারী : নীলফামারীতে মহিদুল ইসলাম (৪৫) নামে ব্র্যাক এক কর্মীকে খুন করে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের আট লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে।গতকাল টঙ্গলবার বিকালে জেলা সদরের কাজিরহাটে ঢেউটিন, রড, সিমেন্টের ব্যবস্যা প্রতিষ্ঠান সোহাগ ট্রের্ডাসে ওই ঘটনা ঘটে।
নিহত ওই ব্যক্তির বাড়ি নওগাঁও জেলায়। ব্র্যাক কাজির হাট শাখায় কর্মরত ছিলেন তিনি।
এলাকাবাসী জানায়, ওই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের পেছনে লাগোয়া একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতেন ব্র্যাক কর্মী মহিদুল ইসলাম। ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিক সোহাগ মিয়া (৪০) পাওনাদারকে পরিশোধের জন্য দুপুরে ব্যাংক থেকে আট লাখ টাকা উত্তোলন করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ক্যাশ বাক্সে রাখেন।
এরপর তিনি দোকান বন্ধ করে সংগলশী ইউনিয়নের মুশরত কুখাপাড়া গ্রামের বাড়িতে যান। দুপুরের খাওয়া সেরে বিকালে এসে দোকান খুলে দেখেন ক্যাশ বাক্সটি ভাঙা। টেবিলের ওপরে থাকা সিসি ক্যামেরার মনিটর এবং কম্পিউটার কিছুই নেই। এরপর তিনি থানায় খবর দিতে যান।
দোকান থেকে টাকা খোয়া যাওয়ার খবর শুনে এলাকার লোকজন দেখতে এসে পেছনের ওই বাড়িতে ঢুকেন।
এ সময় দেখতে পান তালাবন্ধ একটি কক্ষ থেকে বারান্দায় রক্ত ভেসে আসছে। পরে জানালার ফাঁক দিয়ে মহিদুল ইসলামের মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখেন।
ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিক সোহাগ ইসলাম জানান, ওই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের পেছনে লাগোয়া একটি বাড়ি আছে তাদের। সেটি ভাড়া দিয়েছেন ব্র্যাকের কর্মী মহিদুল ইসলামকে। ওই বাড়িতে মহিদুল তার স্ত্রীকে নিয়ে বসবাস করতেন। মহিদুলের স্ত্রী একটি স্কুলে শিক্ষতা করেন। ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের পেছনে ওই বাড়িতে প্রবেশের একটি দরজা আছে।
এলাকাবাসীর ধারণা, দুর্বৃত্তরা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের পেছনে বাড়ির সঙ্গে লাগায়ো ওই দরজা দিয়ে প্রবেশ করেছে। এ সময় কোনো কাজে ব্র্যাক কর্মী মহিদুল বাড়িতে এসে দুর্বৃত্তদেরকে দেখে ফেলেছেন। এ কারণে তাকে ধারাল অস্ত্র দিয়ে হত্যা করে ঘরের ভেতরে রেখে তালা দিয়ে রাখতে পারেন।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রুহুল আমিন মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ লাশ উদ্ধারের কাজ করছে। ধারণা করা হচ্ছে, যারা টাকা ছিনতাই করেছেন তারাই মহিদুলকে হত্যার ঘটনা ঘটিয়েছে।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply