মহেশখালীতে জব্দকৃত কাঁকড়ার ক্ষতিপূরণ ও রেঞ্জ কর্মকর্তার অপসারণ চেয়ে চাষী-ব্যবসায়ীদের মানববন্ধন

মহেশখালী প্রতিনিধিঃ

কক্সবাজারের মহেশখালীতে বন বিভাগের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে জব্দ করা কাঁকড়া আত্মসাতের অভিযোগে প্রতিবাদ সমাবেশ ও মানববন্ধন করেছে ভুক্তভোগী চাষী ও ব্যবসায়ীরা।

বৃহস্পতিবার (৩০ ডিসেম্বর) বিকেলে উপজেলা চত্বরে এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে চাষী-ব্যবসায়ীসহ সর্বস্তরের মানুষ অংশ নেন।

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা বলেন, কাঁকড়া একটি বৈধ ব্যবসা। বন বিভাগের লোকজন অবৈধ বলে ১১টি ঝুঁড়ির ৫ লাখ টাকার কাঁকড়া জব্দ করে মাত্র ৩০ কেজি দেখালো, আমরা দুর্নীতিবাজ রেঞ্জ কর্মকর্তা আনিসুর রহমানসহ জড়িত কর্মকর্তাদের বিচার ও অপসারণ চাই।

বক্তারা বলেন, রাতের আঁধারে অসাধু ব্যবসায়ীদের কাছে ৬২০ কেজি কাঁকড়া বিক্রি করে দিয়েছে। পরদিন উল্টো মামলা করলো। আমরা ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

বক্তারা আরো বলেন, অবিলম্বে জব্দ করা কাঁকড়া ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। অন্যথায় দুর্নীতিবাজ বন বিভাগের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে আন্দোলনে যাবে সর্বস্তরের মানুষ।

মহেশখালী উপজেলা কাঁকড়া ব্যবসায়ি সমিতির উদ্যোগে আয়োজিত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, কাঁকড়া ব্যবসায়ি সমিতির সভাপতি কালাচান, সাধারন সম্পাদক রবিউল আলম, ব্যবসায়ী বাবুল, আব্দুল আজিজ, সেলিম, ফারুক, সাংবাদিক আমিনুল হক, এসএম রুবেল, ইউনুচ, জিল্লুর রহমান মিন্টু, আবদু সালাম বাঙ্গালী, নজরুল ইসলাম পুতু।

প্রসঙ্গত, গত ২৭ ডিসেম্বর রাত ১১টার দিকে কালারমারছড়ার ইউনুছখালী বাজারে সাড়ে ৬০০ কেজি কাঁকড়াসহ ট্রাক জব্দ করে শাপলাপুর বিট কার্যালয়ে নিয়ে যায় উপজেলা রেঞ্জ কর্মকর্তা আনিছুর রহমানের নেতৃত্বে বন বিভাগের লোকজন। পরে সেখান থেকে ট্রাক চালক তাড়িয়ে দেন।

পরদিন মঙ্গলবার ৩০ কেজি জব্দ দেখিয়ে অজ্ঞাতনামা চারজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে বন বিভাগ। এ ঘটনা জানাজানি হলে তুমুল সমালোচনার মুখে পড়ে বন বিভাগের লোকজন। পরে গতকাল বিকেলে জব্দ দেখানো কাঁকড়াগুলো সাগরে অবমুক্ত করা হয়েছে মর্মে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তি মারফত জানান রেঞ্জ কর্মকর্তা আনিছুর রহমান।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply