পূর্ব শত্রুতার জেরধরে মহেশখালীতে দিনদুপুরে একজনকে কুপিয়ে হত্যা

এ.কে.রিফাত, মহেশখালীঃ

কক্সবাজার জেলার মহেশখালী উপজেলার বড় মহেশখালীতে পূর্ব শত্রুতার জেরধরে আবদুল গফুর (৪০)নামের এক ব্যক্তিকে প্রকাশ্য দিনদুপুরে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। ১১ জানুয়ারি (সোমবার) সকাল ১১ঘটিকার সময় মহেশখালী উপজেলার বড় মহেশখালী ইউনিয়নের মুন্সিরডেইল লোয়ান্যা বাজারে এ ঘটনাটি সংগঠিত হয় বলে বিশেষ সুত্রে জানা যায়।

নিহত আব্দুল গফুর ওই এলাকার ফিরোজ মিয়ার পুত্র বলে জানা যায় গেছে। নিহতের পিতা জানান-পূর্ব শত্রুতার জের ধরে একই এলাকার সদ্য কারাগার থেকে মুক্তি প্রাপ্ত অছিউর রহমানের পুত্র ইউসুফ জালাল এর নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী নিহত আবদুল গফুরকে মারার জন্য পাগড়াও করে আসছিলেন। এক পর্যায়ে আজ সকাল ১১ ঘঠিকার সময় তাকে ধরে প্রকাশ্য দিনদুপুরে ইউসুপ জালালের নেতৃত্ব্ধীন সন্ত্রাসী দলটি আব্দুল গফুরকে এলোপাতারি কোপাতে থাকেন।হামলার পর মারাত্মকভাবে জখম হয় আবদুল গফুর। রক্তে লাল হয়ে যায় লোয়ান্যে বাজারের পথঘাট। এমতাবস্থায় স্থানীয়রা তাকে দ্রুত উদ্ধার করে মহেশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন। আব্দুল গফুরের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে দ্রুত কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার জন্য রেফার করেন।

মহেশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে বের হয়ে কক্সবাজার সদর হাসপাতালের উদ্যেশ্যে নেওয়ার পথে স্থানীয় পৌরশহর গোরকঘাটা বাজারে পৌঁছাতেই মৃত্যুর কুলে ঢলে পড়েন আবদুল গফুর। এলাকায় তাঁর মৃত্যুর সংবাদ পৌছাতেই শোকের ছায়া নেমে আসে। বর্তমানে নিহতের লাশ মহেশখালী সদর হাসপাতালে রয়েছেন।

উক্ত বিষয়ে মহেশখালী উপজেলা সাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা ডা.মাহফুজুল হক বলেন বড় মহেশখালী হতে একটু মুমূর্ষু রোগীকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন সকাল ১১;৩০ টাতে।আনার পরপরই রোগীর অবস্থা আশংকাজনক হওয়াতে দ্রুত কক্সবাজার সদর হাসপাতালে রেফার করা হয় এবং তার কিছুক্ষন পর তারা রোগীকে নিয়ে পুনরায় হাসপাতালে চলে আসেন এবং তার মৃত্যুর খবরটি দেন। পরক্ষনে কর্তব্যরত চিকিৎসক আব্দুল গফুরের মৃত্যুর সত্যতা নিশ্চিত করেন। বর্তমানে লাশটি কক্সবাজার মর্গে পাঠানোর ব্যাবস্থা করা হচ্ছে বলে তিনি জানান।

এ বিষয়ে মহেশখালী থানার ওসি (তদন্ত) আশিক ইকবাল জানান,আবদুল গফুর নামের ব্যক্তিকে কুপিয়ে হত্যা করার খবর আমাদের হাতে এসেছে এবং আমদের হাতে খবর আসার পরপরই খুনীদের আটক করার নিমিত্তে উক্ত এলাকায় তাৎক্ষনিক পুলিশি অভিযান শুরু হয়েছে। এজাহার হাতে পেলে হত্যার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে মামলা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply