মহেশখালী হাসপাতাল এবং কিছু কথা ; আসিফ আহমদ

মহেশখালীবাসীর বিপদে একমাত্র সম্বল মহেশখালী হাসপাতাল। দীর্ঘদিন ধরে এই দ্বীপের মানুষের স্বাস্থ্য সেবা প্রদান করে আসছে এই প্রতিষ্ঠান। আমাদের অনেকের জন্ম এই হাসপাতালে আবার আমাদের অনেক প্রিয়জন এই হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন। এই হাসপাতালের চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের উপর আমরা পুরোপুরি নির্ভরশীল। বিনা চিকিৎসায় কোন রোগী মারা গেছেন এমন কোন রেকর্ড মহেশখালী হাসপাতালে নেই। আমরা জানি, মহেশখালীর প্রায় ৫ লক্ষ মানুষের জন্য যত স্বাস্থ্যকর্মী দরকার তার অর্ধেকও নেই। খুব স্বল্প সংখ্যক কর্মীবাহিনী নিয়ে এই হাসপাতাল চলছে।

বর্তমানে করোনা মহামারীতে তাঁরা জীবন বাজি রেখে আমাদের জন্য কাজ করে যাচ্ছে। ইতিমধ্যে অনেক স্বাস্থ্যকর্মী করোনা আক্রান্ত হয়েছে এবং অনেকে সুস্থ হয়েছে। এই ফ্রন্টলাইন যোদ্ধাদের সালাম জানাই। কিন্তু মাঝে মাঝে কিছু ব্যবস্থাপনাগত ত্রুটি আমাদের নজরে আসে। আজ মহেশখালী হাসপাতালের আইসোলেশন সেন্টারের খাবারের মান নিয়ে অনেকেই প্রশ্ন তুলছেন। আমাদের ট্যাক্সের টাকায় চলা প্রতিষ্ঠান নিয়ে প্রশ্ন তোলার অধিকার আমাদের সকলের আছে। কিন্তু প্রশ্ন তুলতে গিয়ে ফেসবুকে ডাক্তার এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের নামে যা ইচ্ছা তা-ই বলছেন। অনেকে সরাসরি ডাক্তারদের নাম উল্লেখ করে তাদের গালগালি করছেন।

আচ্ছা ডাক্তার এবং স্বাস্থ্যকর্মীরাও ফেসবুক ব্যবহার করেন। তাঁরা যদি এগুলো দেখে তবে তাদের মনোবলের কি অবস্থা হবে কেউ কি তা ভেবে দেখেছেন?
তাঁরা কিন্তু এই পেশায় টাকা কামানোর জন্য আসেন নাই। ডাক্তারির চেয়ে বেশি টাকা কামানো যায় এরকম অনেক পেশা আছে। মানুষের সেবা করার ইচ্ছা না থাকলে কেউ ডাক্তার হতে পারে না। দেশের সবচেয়ে মেধাবী ছাত্ররাই ডাক্তারি পড়তে যায়।
মহেশখালী হাসপাতালে ল্যাব টেকনিশিয়ান (মুলত WHO গাইডলাইন অনুযায়ী ল্যাব টেকনিশিয়ানরা করোনা স্যাম্পল সংগ্রহ করে) আছে মাত্র একজন। তিনি ও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। উপায় না থাকায় সাধারণ স্বাস্থ্যকর্মীরা স্যাম্পল সংগ্রহ করছেন।
অথচ আজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সামান্য ভুলের কারণে তাদেরকে তুলোধোনা করছি। আমরা কি এতটাই অকৃতজ্ঞ?

বর্তমানে সারা বাংলাদেশে ডাক্তার এবং স্বাস্থ্যকর্মী সংকট রয়েছে। অনেক ডাক্তার করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। তাছাড়া কিছুদিন আগে খুলনায় এক চিকিৎসককে পিটিয়ে মেরেছে স্থানীয় মানুষ।

৩৬২ বর্গ কিলোমিটারের মহেশখালীতে হাতেগোনা কিছু ডাক্তার এবং স্বাস্থ্যকর্মী আছে। দয়া করে এই মহামারীতে তাদেরকে করোনার বিরুদ্ধে জয়ী হওয়ার জন্য অনুপ্রেরণা দিন, ধন্যবাদ জানান, দোয়া করুন। সেটা না পারলেও অন্তত গালি দিয়েন না।

লেখকঃ আসিফ আহমদ

“সুন্দর ও পজিটিভ মতামতগুলো আমরা তুলে ধরার চেষ্টা করি” – সিবিএল২৪ পরিবার

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply