মহেশখালীতে দুই ভাই : যুবলীগে সাজেদুল, যুবদলের আজিজুল

দুই ভাই, প্রথমজন সাজেদুল করিম মহেশখালী উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক ছোটজন এডঃ আজিজুল করিম মহেশখালী উপজেলা যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক


একেই বলে রাজনীতির ভাগ্য। তারা দুই ভাই, প্রথমজন সাজেদুল করিম মহেশখালী উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক ছোটজন এডঃ আজিজুল করিম মহেশখালী উপজেলা যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক। এই ভাগবাটোয়ারার রাজনীতি নিয়ে মহেশখালীতে হাস্যরসের সৃস্টি হয়েছে। দুই দলেই এরা নেতাদের কাছে খুবই গুরত্বপুর্ণ। এরাই দু’দলেই নেতাকর্মীরা যুবরাজ হিসাবে চিনে। অনেকেই এই অপরাজনীতিকে অসুভ সংকেত বলে মনে করেন।
মহেশখালীতে ভাগের রাজনীতি নিয়ে হস্যরসের সৃস্টি হয়েছে। বিশেষ করে উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক সাজেদুল করিম ও উপজেলা যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক এডঃ আজিজুল করিম উপজেলার রাজনীতিতে দৃস্টি আকর্ষন করেছে। আজিজুল করিম বিগত সময়ে মহেশখালী উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন, তবে সাজেদুল করিম হঠাৎ করে জেলা যুবলীগের বিগত কমিটিতে কোষাধ্যক্ষ হিসেবে আর্বিভুত হয়েছেন।
প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায় বিগত সময়ে আরো একবার উপজেলা যুবলীগের দায়িত্ব পেয়েছিলেন তিনি। ওই সময় তৎকালীন উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মোঃ শাহজাহানের সাথে রাজনীতির প্রতিযোগীতায় পেরে উঠতে না পেরে কখনো মহেশখালী উপজেলা সদরে দেখা যায়নি। বর্তমানে দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন এই যুবলীগের ভাগের নেতা।
স্থানীয় যুবলীগের দেয়া তথ্যমতে সোনাদিয়া প্যারাবন কেটে চিংড়ি ঘের নির্মাণ করতেই মুলত তিনি যুবলীগে আর্বিভুত হয়েছেন। বর্তমানে মহেশখালীর সুশৃংখল যুবলীগকে দু’ভাগে বিভক্ত করে সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প থেকে কোটি-কোটি টাকা কামাই করছেন। উপজেলা যুবলীগের একজন সিনিয়র সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, তার রাজনীতি মুলত টাকা বানানোর ও প্যারাবন দখল করা। এখানে আদর্শের কিছু নেই। কোন সময় বিএনপি ক্ষমতায় আসলেও এদের কোন সমস্যা নাই। তখন যুবদলের এডঃ আজিজুল করিমের নেতৃত্বেই সব হবে। সাজেদুল করিম চলে যাবে পর্দার আড়ালে।
মহেশখালী উপজেলা একজন সাবেক নেতা জানান, সাজেদুল করিমকে কোন সময় ছাত্রলীগে বিগত সময়ে দেখিনি। বর্তমানে তার নাম উল্লেখ করলেও সমস্যা হবে। যুবলীগের কেন্দ্রিয় সিদ্ধান্ত মোতাবেক এসব সুবিধাবাদী রাজনৈতিকে স্থান যুবলীগে হওয়ার কথা নয়। তারপরও দাপটের সহিত রাজনীতি করছেন তিনি। বিগত সময়ে নির্বাচনের আগে বিএনপি ও জামায়াত নেতাদের বিরুদ্ধে একাধীক নাশকতার মামলা হলেও এডঃ আজিজুল করিম ছিলেন অক্ষত। বড় ভাই যুবলীগের আহবায়ক সাজেদুল করিমের ছাতার নিছে তিনি নিরাপদ ছিলেন।
মহেশখালী উপজেলা যুবদলের নবনির্বাচিত আহবায়ক মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল জানান, রাজনীতি করার অধিকার সবার রয়েছে। তবে ইতোমধ্যে আর বেশী কিছু বলতে চাই না।

  • সোর্সঃ কক্সবাজার ৭১
Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply