মেসির জোড়া গোলে বার্সেলোনার জয়

দেখতে দেখতে একদম শেষদিকে চলে এসেছে স্প্যানিশ লা লিগার চলতি মৌসুম। কিন্তু এখনও মীমাংসা হয়নি কোন দল হতে চলেছে ২০২০-২১ মৌসুমের লা লিগা চ্যাম্পিয়ন। পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ চারটি দলই রয়েছে শিরোপার দৌড়ে। তাই প্রতিটি ম্যাচই যেন একেকটি ফাইনাল।

তেমনই এক ম্যাচে রোববার রাতে ভ্যালেন্সিয়াকে ৩-২ গোলে হারিয়েছে বার্সেলোনা। দলের জয়ে জোড়া গোল করেছেন অধিনায়ক লিওনেল মেসি, অন্য গোল অ্যান্তনিও গ্রিজম্যানের। এই জয়ের ফলে লিগজয়ের আশা এখনও বাঁচিয়ে রাখল বার্সেলোনা।

ভ্যালেন্সিয়ার ঘরের মাঠে হওয়া ম্যাচটিতে পাঁচটি গোলই হয়েছে দ্বিতীয়ার্ধে। প্রথমার্ধে বেশ কিছু আক্রমণ সাজিয়েছিল বার্সেলোনা, কিন্তু ফল আসেনি। ফলে গোলশূন্য থেকে বিরতিতে যায় দুই দল। দ্বিতীয়ার্ধে ফিরে ৫০ মিনিটের সময় ম্যাচের প্রথম গোলটি করেন ভ্যালেন্সিয়ার গ্যাব্রিয়েল পাউলিস্তা।

গোল হজম করে পিছিয়ে পড়া বার্সেলোনার বিপদ আরও বাড়তে পারত মেসির পেনাল্টি মিসের কারণে। ম্যাচের ৫৬ মিনিটের সময় ডি-বক্সের মধ্যে প্রতিপক্ষ খেলোয়াড়ের হ্যান্ডবলে পেনাল্টি পায় বার্সেলোনা। কিন্তু সেটি থেকে সরাসরি গোল আদায় করতে পারেননি মেসি।

তবে হতাশ হতে হয়নি বার্সেলোনাকে। ভ্যালেন্সিয়া গোলরক্ষকের ঠেকানো ফিরতি বলে শট নেন পেদ্রি। সেটি প্রতিহত হলে ফের বল পান মেসি। এবার আর ভুল করেননি। ফাঁকায় পাওয়া বলটি জোরালো শটে প্রবেশ করান জালে, ম্যাচে ফেরান সমতা।

এর মিনিট ছয়েক বাদে দলকে এগিয়ে দেন বার্সেলোনার ফ্রেঞ্চ ফরোয়ার্ড গ্রিজম্যান। জর্ডি আলবার ক্রসে হেড করেন ফ্র্যাংকি ডি ইয়ং। সেটি ঠেকিয়ে দেন ভ্যালেন্সিয়া গোলরক্ষক। বিনা বাঁধায় ফিরতি বল পেয়ে স্কোরশিটে নাম তোলেন গ্রিজম্যান, লিড পায় বার্সেলোনা।

স্কোরলাইনের ব্যবধান আরও বাড়ে ম্যাচের ৬৯ মিনিটের সময়। ডি-বক্সের খানিক বাইরে প্রায় ২০ গজ দূর থেকে দর্শনীয় এক ফ্রি-কিকে ভ্যালেন্সিয়ার রক্ষণকে বোকা বানান মেসি। স্কোর লাইন হয় ৩-০। চলতি লিগে মেসির এটি ২৮তম গোল। পাশাপাশি রয়েছে ৯টি এসিস্ট।

দুই গোলে পিছিয়ে পড়ার পর ম্যাচে ফেরার সম্ভাব্য সকল চেষ্টাই করে স্বাগতিক ভ্যালেন্সিয়া। যার ফলও পেয়ে যায় ৮৩ মিনিটের সময়। ম্যাচের ৮৩ মিনিটের সময় প্রায় ৩৫ গজ দূর থেকে আচমকা এক বুলেট গতির শটে ব্যবধান কমান কার্লোস সোলার। তবে সমতাসূচক গোল আর তারা পায়নি।

এ জয়ের পর ৩৪ ম্যাচে বার্সেলোনার পয়েন্ট হলো ৭৪, অবস্থান তৃতীয়। সমান ম্যাচে সমান পয়েন্ট থাকলেও হেড টু হেডে এগিয়ে থাকায় দুই নম্বরে রিয়াল মাদ্রিদ। অন্যদিকে ৩৪ ম্যাচে ৭৬ পয়েন্ট নিয়ে সবার ওপরে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply