রেফ্রিজারেটরের মাইনাস তাপমাত্রার কারণেই লরিতে মৃত্যু ঘটে ৩৯ চীনা নাগরিকের

সিবিএল২৪ : বুধবার লন্ডনের কাছে লরি থেকে একসঙ্গে ৩৯ জনের লাশ পাওয়া গিয়ে ছিল। তা নিয়ে স্তম্ভিত হয়ে গিয়ে ছিল গোটা ব্রিটেন। দেশটির প্রধানমন্ত্রী এই ঘটনায় হতবাক হয়ে গিয়ে ছিল। ব্রিটেন পুলিশ তদন্ত শুরু করে জানতে পারে মৃতেরা সকলেই চিনা নাগরিক।তারা সকলেই অভিবাসন প্রার্থী ছিলেন। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, তারা চীনা উইঘুর থেকে আসা মুসলিম।

লাশ উদ্ধার ঘটনায় গ্রেফতার হওয়া ২৬ বছরের লরির চালক মাউরিচ রবিনসনকে জিজ্ঞাসাবাদ পুলিশ জানতে পেরেছে, লরির রেফ্রিজারেটরের তাপতাত্রায় দমবন্ধ হয়ে মৃত্যু হয়ে ছিল ওই চীনা নাগরিকদের।

রবিনসন পুলিশকে জানিয়েছেন, রেফ্রিজারেটরের তাপমাত্রা ছিল মাইনাস ২৫ ডিগ্রি এবং তারা ব্রিটেনে যাওয়ার জন্য মরিয়া হয়ে উঠে ছিল। তাই প্রাণের ঝুঁকি আছে জেনেও তারা ব্রিটেনে যাওয়া জন্য ওই লরির কন্টেনারে উঠে পড়ে। রবিনসনের তাদের দুপুর সাড়ে ১২টার সময় লরিতে ওঠায়। রবিনসনের পক্ষে রেফ্রিজারেটরের তাপমাত্রা মাইনাস ২৫ ডিগ্রি থেকে বাড়ানোর কোনো উপায় ছিল না।

লরিটি আসলে এয়ারটাইট পণ্য বহনে ব্যবহৃত হয় এবং ওই নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় তা পরিচালনা করা হয়। ফুল, গাছ ও অন্যান্য তাজা শাক-সবজি, মাছ-মাংস বহনে এই ধরণের শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কন্টেনার ব্যবহৃত হয় বলে জানিয়েছেন রোড হলেজ এ্যাসোসিয়েশনের সিইও রিচার্ড বারনেট।

জানা গেছে, যাত্রা শুরু সময় ওই কন্টেনরের তাপমাত্রা ছিল মাইনাস ৩০ ডিগ্রি। কিন্তু সেটির মাত্রা আর ৫ ডিগ্রির ওপর তোলা সম্ভব ছিল না। আর ভিতরে তাদের ভাগ্যে কি ঘটে তা বোঝার কোনো উপায় ছিল না বলেই রবিনসন দাবি করছেন।

রবিনসন পুলিশকে জানান, এসেক্সের পারফ্লিট পোর্টে আসার আগে বেলজিয়াম থেকে লরিতে করে ১৭৩ মাইল নিয়ে আসার আধঘন্টার মধ্যেই তারা সকলেই মারা যান। ব্রিটেনের গ্রেয়েসের কাছে একটি শিল্পাঞ্চলে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়।

এদিকে দক্ষিণ-পূর্ব ইংল্যান্ডের কেন্টের এম ২০ সড়কে পুলিশ আরো একটি লরি থেকে ৯ অভিবাসীকে জীবন্ত উদ্ধার করেছে। ব্রিটেনের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অভিবাসন দফতরে এদের পাঠানো হয়েছে।
সূত্র : আল জাজিরা

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply