রোহিঙ্গা ক্যাম্পে দুই গ্রুপে সংঘর্ষে ৭ রোহিঙ্গা নিহত

কক্সবাজারের উখিয়ায় শরণার্থী শিবিরে ‘রোহিঙ্গাদের দুই পক্ষের সংঘর্ষে’ অন্তত সাতজন নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

৮ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ানের (এপিবিএন) অধিনায়ক পুলিশ সুপার মো. শিহাব কায়সার খান বলছেন, শুক্রবার ভোর রাত সোয়া ৪টার দিকে উখিয়া উপজেলার পালংখালী ইউনিয়নের ১৮ নম্বর ময়নারঘোনা রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গোলাগুলির এ ঘটনা ঘটে।

সংঘর্ষে সাতজনের মৃত্যুর পাশাপাশি আরও কয়েকজন আহত হয়েছেন।

নিহতরা হলেন- উখিয়ার বালুখালী-২ এর ইদ্রিস (৩২), বালুখালী-১ এর ইব্রাহীম হোসেন (২২), ১৮ নম্বর ক্যাম্পের এইচ ব্লকের বাসিন্দা নুরুল ইসলামের ছেলে আজিজুল হক (২৬) আবুল হোসেনের ছেলে মো. আমীন (৩২) মোঃ নবীর ছেলে হাফেজ নুর হালিম (৪৫)মৌলভী হামিদুল্লাহ(৫০)
নুর মোহাম্মদ এর ছেলে নুর কায়সার (১৫)।

শিহাব কায়সার বলেন, “পরিস্থিতি এখন নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। ক্যাম্পে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। অস্ত্রসহ একজনকে আটক করেছি আমরা।”

তবে কী নিয়ে এই সংঘর্ষ, সে বিষয়ে পুলিশ এখনো নিশ্চিত নয় বলে জানান এপিবিএন এর পুলিশ সুপার।

তিনি বলেন, নিহতদের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হচ্ছে।

পৃথিবীর সবচেয়ে বড় শরণার্থী শিবিরে পরিণত হওয়া কক্সবাজারের এই ক্যাম্পগুলোতে এর আগেও বিভিন্ন সময়ে গোলাগুলি ও সংঘর্ষ হয়েছে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে সেগুলোকে ‘রোহিঙ্গা ডাকাত’ বা ‘চোরাকারবারিদের’ কাজ বলা হয়েছে পুলিশের পক্ষ থেকে।

তবে রোহিঙ্গা নেতা মোহাম্মদ মুহিবুল্লাহ খুন হওয়ার পর ক্যাম্পে সক্রিয় বিভিন্ন পক্ষের অনেক বিষয় এখন আন্তর্জাতিক পর্যায়েও আলোচনায় আসছে।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply