সাতক্ষীয়ায় বন্দুকযুদ্ধে ছাত্রলীগ নেতার দুই দেহরক্ষী নিহত

সাতক্ষীরা : সাতক্ষীরা জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাদিকুর রহমান সাদিকের দুই দেহরক্ষী পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে। পুলিশের দাবি, নিহত দ্বীপ আজাদ ও সাইফুল ইসলাম সন্ত্রাসী ছিল। তাদের গ্রেফতার করা হয়েছিল। শুক্রবার (২৯ নভেম্বর) মধ্যরাতে সাতক্ষীরা বাইপাস সড়কের বকচরা মোড়ে তাদের নিয়ে অভিযানে গেলে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে বলে পুলিশ জানায়। এসময় ঘটনাস্থল থেকে দুটি বিদেশি পিস্তল ও এক রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে। সাতক্ষীরার পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান বিষয়টি মিডিয়াকে নিশ্চিত করেছেন।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, সাতক্ষীরায় ২৬ লাখ টাকা ছিনতাই মামলায় সন্দেহভাজন দুই যুবক গ্রেপ্তার হওয়ার পর পুলিশের অভিযানের মধ্যে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন।
শনিবার ভোর রাতে শহরের বাইপাস সড়কের বকচরা মোড়ে গোলাগুলির ওই ঘটনা ঘটে বলে জেলার পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমানের ভাষ্য।
বন্দুকযুদ্ধে নিহত দীপ আজাদ শহরের মুন্সিপাড়া এলাকার মইনুল ইসলামের ছেলে এবং সাইফুল ইসলাম কালিগঞ্জের সাইহাটি গ্রামের সবুর সরদারের ছেলে।

বন্দুকযুদ্ধে নিহত দীপ ও সাইফুলের মরদেহ


পুলিশের দাবি, আজাদ ও সাইফুল দুজনেই ওই এলাকার ‘চিহ্নিত’ সন্ত্রাসী। তাদের বিরুদ্ধে হত্যাসহ বিভিন্ন অভিযোগে মামলা রয়েছে থানায়।
গত ৩১ অক্টোবর কালীগঞ্জের পাওখালী এলাকায় বিকাশের দুই এজেন্টকে গুলি করে ২৬ লাখ টাকা ছিনইতাইয়ের মামলায় সন্দেহভাজন হিসেবে শুক্রবার আজাদ ও সাইফুলকে গ্রেপ্তার করে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ ও কালিগঞ্জ থানা পুলিশ।

এরপর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ‘তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে’ তাদের সঙ্গে নিয়েই পুলিশের একটি দল বকচরা মোড় এলাকায় ‘অস্ত্র উদ্ধার অভিযানে’ যায় বলে পুলিশ সুপার মোস্তাফিজ জানান।
তিনি বলেন, “ওই এলাকায় পৌঁছালে তাদের সহযোগীরা তাদেরকে ছিনিয়ে নিতে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এসময় পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালায়। এতে গুলিবিদ্ধ হয় আজাদ ও সাইফুল।”
গুলিবিদ্ধ অবস্থায় হাসপাতালে নেওয়ার পথে তাদের মৃত্যু হয় বলে পুলিশ সুপার জানান।
তিনি বলেন, এই অভিযানে ঘটনাস্থল থেকে দুটি বিদেশি পিস্তল ও এক রাউন্ড গুলি উদ্ধার করেছে পুলিশ।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply