সীমান্তে অস্ত্র মজুত : যুদ্ধের দোরগোড়ায় পাক-ভারত।

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :

কাশ্মীর ইস্যুতে যুদ্ধে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানসহ সে দেশের অন্য মন্ত্রীরা যুদ্ধের হুমকি দিয়েছেন। এমনকি পরমাণু হামলার হুমকিও দিয়েছে পাকিস্তান। পিছিয়ে নেই ভারতও, তারাও প্রয়োজনে পরমাণু বোমা ব্যবহার করার হুমকি দিয়ে রেখেছে। সব মিলিয়ে তৈরি হয়েছে যুদ্ধের আবহ।

তবে বড় ধরনের যুদ্ধ এখনো না লাগলেও ছো ছোট যুদ্ধ প্রতিদিনই হচ্ছে সীমান্তে। একটি সমীক্ষায় উঠে এসেছে, গত ৫ আগস্ট কাশ্মীরের স্পেশ্যাল স্ট্যাটাস বাতিলের পর এখন পর্যন্ত ২২২ বার সংঘর্ষে জড়িয়েছে দুই দেশ। এতে নিহত হয়েছে দুই দেশের অন্তত ২০ সেনা। যদিও কোনো পক্ষাই হতাহতের সঠিক তথ্য দিচ্ছে না।

এরইমধ্যে পাকিস্তান সীমান্ত এলাকায় অতিরিক্ত সেনা মোতায়েন করে ভারত। খবর যে সেনা ভারত মোতায়েন করেছে তারা বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত। এরইমধ্যে শ্রীনগর সীমান্তে স্পেশ্যাল কমান্ডো বাহিনী মোতায়েন করে পাকিস্তান।

আন্তর্জাতিক মিডিয়া সূত্রে খবর, দুই দেশই সীমান্তে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র মজুদ করতে শুরু করেছে। এসব অস্ত্রের মধ্যে রয়েছে ট্যাংক, মিশাইল ডিফেন্স সিস্টেম, ছোট আকারের ব্যালেস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র, মর্টার শেল, রকেট।

এদিকে, নিয়ন্ত্রণ রেখার কাছে বালতোরো সেক্টরের স্কারদু এলাকায় বেশ কয়েকটি নতুন বাংকার পাকিস্তান তৈরি করছে। পাক-অধিকৃত কাশ্মীরের এই এলাকা ঠিক কার্গিলের উল্টোদিকে অবস্থিত। এর মধ্যে ছটি বাংকার প্রায় তৈরি হয়ে গিয়েছে। কয়েকটি বাংকার ১০ ফুট X ১২ ফুটের এবং অন্য বাংকারগুলি ২০ ফুট X ১২ ফুট। যুদ্ধ লাগলে বাংকারগুলি অস্ত্রশস্ত্র মজুত করার জন্যও ব্যবহার করা হতে পারে।

আর ভারত সীমান্তে মোতায়েন করছে বোফর্স কামান। ছোটখাটো এই কামান দিয়ে ১ থেকে দেড় কিলোমিটার দূরে আঘাত হানা সম্ভব। এছাড়া তারা কয়েকটি এলাকাতে মিশাইল ডিফেন্স সিস্টেম মোতায়েন করছে।

অন্যদিকে, ভারত সেনাবাহিনীর প্রধান কাশ্মীরের বেশকিছু সীমান্ত এলাকা পরিদর্শন করেছেন। তিনি সেনা সদস্যদের সজাগ থাকার পাশাপাশি যেকোনো পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত থাকতে বলেছেন। এতেই নতুন করে উত্তেজনা তৈরি হয়েছে। বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, বড় ধরনের কোনো অঘটন ঘটতে পারে সীমান্তে।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply