স্ত্রীকে খুনের অভিযোগে স্বামীকে পিটিয়ে মারলো গ্রামবাসী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতের উত্তর প্রদেশে স্ত্রীকে খুন করে পালিয়ে যাওয়ার সময় এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে মেরেছে গ্রামবাসী।

বুধবার উত্তর প্রদেশের ফতেহপুর জেলার সিমৌর গ্রামে ঘটনাটি ঘটেছে বলে শনিবার জানিয়েছে এনডিটিভি।

নিহত ব্যক্তিকে নাসির কুরেশি (৪০) বলে শনাক্ত করা হয়েছে। নাসির তার স্ত্রী আফসারিকে (৩৫) কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে খুন করে পালানোর চেষ্টা করছিল। এ সময় গ্রামবাসীরা তাকে আটক করে বেদম পিটুনি দেয়।

অনলাইনে আসা এক ভিডিওতে অন্তত ছয় ব্যক্তিকে লাঠি ও লোহার রড হাতে রাস্তায় পড়ে থাকা এক ব্যক্তিকে আক্রমণ করতে দেখা গেছে।

এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওই ভিডিও ছড়িয়ে পড়ার আগ পর্যন্ত স্থানীয় পুলিশ ওই ঘটনার বিষয়ে কিছু জানেনা বলে দাবি করেছিল। পরে পুলিশ জানায়, ওই ভিডিও দেখে পাঁচ ব্যক্তিকে শনাক্ত করে তাদের মধ্যে তিন জনকে গ্রেপ্তার করেছে তারা।

বৃহস্পতিবার ফতেহপুরের সহকারী পুলিশ সুপার শ্রীপাল যাদব এনডিটিভিকে বলেন, “এই ব্যক্তি গতকাল তার স্ত্রীকে খুন করেছে বলে অভিযোগ। যখন সে পালানোর চেষ্টা করছিল গ্রামবাসীরা তাকে ঘিরে ফেলে। তারা তার ওপর পাথর নিক্ষেপ করে ও তাকে মারধর করে। এতে তার মৃত্যু হয়।

“গতকাল কেউ কোনো ভিডিওর কথা উল্লেখ করেনি, কিন্তু আজ এটি সামনে এসেছে। আমরা এখন ভিডিওটিও তদন্ত করে দেখছি।”

ওই ভিডিওতে নাসির বলে ধারণা করা ব্যক্তিকে ধূলিময় একটি রাস্তায় নির্জীবভাবে উপুড় হয়ে পড়ে থাকতে দেখা যায় আর অন্তত ছয় ব্যক্তিকে তাকে নির্দয়ভাবে পেটাতে দেখা যায়।

ঘটনার সময় আশপাশে অনেক লোকজন দাঁড়িয়ে এ ঘটনা দেখছিল। কেউ কেউ মোবাইল ফোনে ভিডিও করছিল

সিমৌরে নাসির কুরেশির শ্বশুর বাড়ি। সেখানে স্বামী-স্ত্রীর ঝগড়ার এক পর্যায়ে নাসির তার স্ত্রীকে কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে খুন করেন। তার শাশুড়ি ও শালী তাকে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করলে নাসির তাদেরও আঘাত করেন।

তাদের চিৎকারেই গ্রামবাসী এগিয়ে আসে। এক পর্যায়ে তারা তাকে ধরে বেদম পিটুনি দেয়। এতে নাসিরের মৃত্যু হয়।  

নাসির ও স্ত্রী, উভয়ের লাশই ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। ওই গ্রামে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। গণপিটুনির সঙ্গে জড়িত অন্যদের ধরতে অভিযান অব্যাহত আছে বলে জানিয়েছেন এক ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তা। 

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply