স্ত্রীর লাশ ট্যাংকিতে রেখে অপপ্রচার, স্বামীসহ গ্রেফতার ৪

কালিয়াকৈর, গাজীপুর :

আড়াই মাস আগে দ্বিতীয় স্ত্রী ফরিদা বেগমকে শ্বাসরোধে হত্যা করে কেয়রটেকার স্বামী মুনসুর আলী। এরপর ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে স্ত্রীর মরদেহ সেফটি ট্যাংকিতে ঢোকান স্বামী। তবে বিষয়টি ফাঁস হলে প্রকাশ্যে আসে গুম হওয়া গৃহবধূর মরদেহ।

বুধবার সকালে গাজীপুরের কালিয়াকৈরে চান্দরা খাঁজারডেকের আতাব উদ্দিন দেওয়ানের বাগানবাড়ির সেফটি ট্যাংক থেকে ওই গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় স্বামীসহ চারজনকে আটক করা হয়েছে।

গৃহবধুর মরদেহ

আটকরা হলেন-পাবনার আতাইকুল থানার শ্রীপুর গ্রামের মুনসুর আলী, তার প্রথম স্ত্রী রেখা বেগম, ছেলে স্বপন মিয়া ও বাগানবাড়ির মালিকের স্ত্রী খাদিজা বেগম। 

কালিয়াকৈর থানার ওসি আলমগীর হোসেন মজুমদার জানান, আড়াই মাস আগে আতাব উদ্দিন দেওয়ানের বাড়ির কেয়ারটেকার তার দ্বিতীয় স্ত্রীকে শ্বাসরোধে হত্যার পর মরদেহ সেফটি ট্যাংকিতে ফেলে রাখে। পরে বিষয়টি জানতে পেরে সেখান থেকে গৃহবধূর মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। এখন মরদেহটি গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মের্গ পাঠানো হয়েছে।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply