স্বামীর অবহেলা ও শ্বশুরবাড়ির লোকজনের উত্যক্তায় মাথা ন্যাড়া

উপকূলীয় প্রতিনিধি

গত ১৫ দিন পূর্বে ঘটিত কালারমারছড়া ইউনিয়নের নয়া পাড়া গ্রামের গৃহিনীর মাথা ন্যাড়া হওয়ার ঘটনাটি গত শনিবার প্রকাশ্যে আসে। ঘটনার অনুসন্ধানে গিয়ে জানা যায়, গৃহিণী মায়মুনার ধার করা ২০হাজার টাকা, দুই ভরি স্বর্ণ খেয়ে ফেলার অভিযোগ এবং ভরণপোষণ ঠিকঠাক না দেওয়ায় এমন ঘটনা ঘটেছে বলে নিশ্চিত হয়েছি ভিক্টিমের বক্তব্য থেকে। ঘটনাস্থলে গিয়ে শ্বশুরবাড়ির লোকজন এবং তার কথার মধ্যে অমিল দেখা যায়।আসল ঘটনার সূত্রপাত দীর্ঘদিন ধরে মাথার তেল চায় গৃহিনী। স্বামী বাহার উদ্দিন তেল কিনে না দেওয়ায় ক্ষোভে, রাগ, অভিমান থেকে মাথার চুল ন্যাড়া করে মায়মুনা। তবে মাথা ন্যাড়া করার পিছনে পারিবারিক কলহ, ঠিকঠাক ভরণপোষণ না দেওয়া,মানসিক নির্যাতন কাজ করেছে, তার প্রতি অবহেলার ফলস্বরূপ এই ঘটনা ঘটেছে বলে জানা যায়।

এই ঘটনার দুয়েকদিন পরে টিউবওয়েলের কাজে এক্সিডেন্ট করে তার স্বামী বাহার উদ্দিন চিকিৎসার জন্য বর্তমানে চট্রগ্রামে হাসপাতালে রয়েছে বলে জানায়।

জানা যায়, মায়মুনা টিউমার রোগী তার চিকিৎসা না করা,শ্বশুরবাড়ির লোকজনের মানসিক টর্চার ও স্বামী কর্তৃক অবহেলার কারণ এবং ভবিষ্যত অনিশ্চয়তা থেকে ক্ষোভে নিজের মাথা ন্যাড়া করেছে। তবে তার অভিযোগ তার স্বামী নয়, শ্বশুরবাড়ির লোকজনই প্রথমে অর্ধেক ন্যাড়া করে তার মাথা, বাকী অর্ধেক সে নিজে ন্যাড়া করে বলে স্বীকারোক্তি দেয় মায়মুনা। ছড়িয়ে পড়া ভিডিওটি প্রসঙ্গে মায়মুনা বলে,তার হাতে ন্যাড়া করা ভিডিওটা ছড়ায় তার পূর্বের অংশটা ঐ ভিডিওতে নেই। তবে পুরো বিষয়টি অস্বীকার করে তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন মায়মুনার উপরে দোষ চাপায়।

পারিবারিকভাবে মিটমাট করা না গেলে আরও মারাত্নক ঘটনা ঘটার আশঙ্কা। বেছে নিতে পারে আত্নহত্যার পথ।

Leave a Reply