২০০ টাকার বাজি, প্রাণ গেলো আহসানউল্লাহ ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ শিক্ষার্থীর

বাবুগঞ্জ, বরিশাল :

বন্ধুদের সঙ্গে ২০০ টাকা বাজি ধরে বরিশালের বাবুগঞ্জের দূর্গাসাগর দিঘি সাঁতরে পাড় হতে গিয়ে পানিতে ডুবে মারা গেছেন ওমর ফারুক হৃদয় নামে এক যুবক। নিখোঁজের ১০ ঘণ্টা পর গতকাল রাত ৯টায় তার লাশ উদ্ধার করা হয়। হৃদয় ঢাকার আহসানউল্লাহ ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ শিক্ষার্থী। আগামী সপ্তাহে ময়মনসিংহের একটি টেক্সটাইল কোম্পানিতে যোগদান করার কথা ছিল তার। নিহত ওমর ফারুক বরিশাল নগরীর কাউনিয়া হাউজিং এলাকার পুলিশ সদস্য শাহ আলমের ছেলে।

ঘটনার বিবরণে জানা গেছে, ওমর তার বন্ধু তায়মন হৃদয় ও বান্ধবী রাকিন আক্তারকে নিয়ে গতকাল বুধবার সকালে মাধবপাশা ইউনিয়নের দুর্গাসাগর দীঘিপাড়ে ঘুরতে যান। এসময়, মজা করে পাড় থেকে দীঘিটির মধ্যে থাকা টিলার দ্বীপে সাঁতরে যাওয়ার বাজি ধরেন ওমর ও হৃদয়। তবে টিলার কাছে যাওয়ার আগেই দুপুর ১২টার দিকে সে নিখোঁজ হয়।

এরপর তার দুই বন্ধু ও স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দিলে দুপুর থেকেই উদ্ধার কার্যক্রম শুরু হয়। 

দীর্ঘ ৮ ঘন্টা তল্লাসির পর বুধবার (২০ নভেম্বর) রাত পৌনে নয়টার দিকে বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলার মাধবপাশায় দুর্গাসাগর দীঘি থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহতের স্বজনেরা জানান, বুধবার দুপুর ১২টার দিকে বন্ধুদের সঙ্গে বাজি ধরে দুর্গাসাগর দীঘিতে সাঁতার কাটতে গিয়ে নিখোঁজ হন ওমর ফারুক।

এরপর তার দুই বন্ধু ও স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দিলে দুপুর থেকেই উদ্ধার কার্যক্রম শুরু হয়। 

বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের এয়ারপোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম জাহিদ বিন আলম মিডিয়াকে জানান, আট ঘণ্টা তল্লাশি চালিয়ে রাত পৌনে নয়টার দিকে ওমরের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। 

এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হৃদয় ও রাকিনকে পুলিশি হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।  

রাকিন নগরের শিতলাখোলা এলাকার ও হৃদয় কাউনিয়া হাউজিং এলাকার বাসিন্দা বলে জানিয়েছেন পুলিশের ওই কর্মকর্তা। 

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply