২৩ জুনঃ ইতিহাসে আজকের এই দিনে

সিবিএল২৪:

আজকের দিনটি কাল হয়ে যায় অতীত। তাই প্রতিটি দিনই এক একটি ইতিহাস। আজ ২৩ জুন ২০২০, মঙ্গলবার। ০৯ আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ।

এক নজরে দেখে নিন ইতিহাসের আজকের এই দিনে কি কি ঘটেছিল। কে কে জন্ম নিয়েছিলেন ও মৃত্যুবরণ করেছিলেন।

ঘটনাবলি:
০৯৩০ – পৃথিবীর প্রাচীনতম সংসদ আইনল্যান্ড সংসদ যাত্রা শুরু করে।
১৫৩৬ – জেনেভায় ফ্রান্সের প্রোটেস্টেন্ট ধর্মতত্ত্ব বিশারদ জন কেলভিন সংস্কার আন্দোলন শুরু করেন।
১৭২৪ – রাশিয়া ও তুরস্কের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।
১৭৫৭ – পলাশীর যুদ্ধে ইংরেজ সেনাপতি রবার্ট কাইভের কাছে সিরাজউদ্দৌলার পরাজয় ঘটলে বাংলায় ইংরেজ শাসনের সূত্রপাত হয়।
১৭৫৭ – ঐতিহাসিক পলাশীর যুদ্ধ শুরু হয়।
১৮৬০ – উমেশচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের সম্পাদনায় সাপ্তাহিক ‘মনোহর’ প্রকাশিত হয়।
১৯২৬ – নাট্যকার শিশিরকুমার ভাদুড়ী নাট্যমন্দির প্রতিষ্ঠা করেন।
১৯৩৪ – সাত সপ্তাহ সীমান্ত যুদ্ধের পর সৌদি আরব ও পরাজিত ইয়েমেনের মধ্যে শান্তিচুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।
১৯৩৯ – ফ্রান্স, সিরিয়ার ইসকেনদেরুন বন্দরকে তুরস্কের নিয়ন্ত্রণে ছেড়ে দেওয়া হয়।
১৯৪১ – সোভিয়েত লাল ফৌজ জার্মানির নাৎসি বাহিনীর বিরুদ্ধে সর্বাত্মক প্রতিরোধ যুদ্ধ শুরু করে।
১৯৪৯ – হার্ভার্ড মেডিক্যাল স্কুল থেকে ১২ নারী গ্র্যাজুয়েশন লাভ করেন।
১৯৪৯ – মওলানা ভাসানীর নেতৃত্বে আওয়ামী মুসলিম লীগ প্রতিষ্ঠিত হয়।
১৯৫০ – সুইস পার্লামেন্ট নারীর ভোটাধিকার প্রয়োগের বিরুদ্ধে ভোট দেয়।
১৯৬৫ – কর্নেল জমাল আবেদেল নাসের মিশরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন।
১৯৭৮ – অতীশ দীপঙ্করের দেহভস্ম চীন থেকে ঢাকায় আনা হয়।
১৯৮০ – ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর পুত্র সঞ্জয় গান্ধী বিমান দুর্ঘটনার নিহত হন।
১৯৮৫ – টরেন্টো থেকে বোম্বে যাবার পথে এয়ার ইন্ডিয়ার বোয়িং ৭৪৭ আটলান্টিক সাগরে বিধ্বস্ত হয়। এ সময় ৩২৯ যাত্রীর সবাই নিহত হয়।
১৯৮৯ – ১৪ বছর গৃহযুদ্ধের পর আঙ্গোলায় যুদ্ধ বিরতি হয়।
১৯৯৪ – ২০ বছর পর দক্ষিণ আফ্রিকা পুনরায় জাতিসংঘের সদস্যপদ লাভ করে।
১৯৯৬ – শেখ হাসিনা প্রথমবারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন। ২১ বছর পর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে।
১৯৯৮ – পৃথিবীর ১১তম ও বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ যমুনা সেতু উদ্বোধন করা হয়।
জন্ম:
০০৪৭ – কায়েসারিওন, তিনি ছিলে মিশরের রাজা।
১৬৬৮ – গিয়াম্বাটিস্টা ভিকো, তিনি ছিলেন ইতালীয় আইনজ্ঞ, ঐতিহাসিক ও দার্শনিক।
১৭৬৩ – জোসেফিন, তিনি ছিলেন ফ্রান্সের সম্রাট নেপোলিয়ন বোনাপোর্টের স্ত্রী।
১৮২৪ – কার্ল রেইনেকে, তিনি ছিলেন জার্মান পিয়ানোবাদক ও সুরকার।
১৮৬৭ – হরিচরণ বন্দ্যোপাধ্যায়, তিনি ছিলেন ‘বঙ্গীয় শব্দকোষ’ অভিধান রচয়িতা।
১৮৮৯ – আনা আখমাতোভা, তিনি ছিলেন ইউক্রেনীয় রাশিয়ান কবি ও লেখক।
১৮৯৪ – অষ্টম এডওয়ার্ড, তিনি ছিলেন যুক্তরাজ্য রাজা।
১৯০৭ – জেমস মেয়াডে, তিনি ছিলেন নোবেল পুরস্কার বিজয়ী ইংরেজ অর্থনীতিবিদ ও অধ্যাপক।
১৯১২ – অ্যালান টুরিং, তিনি ছিলেন ইংরেজ গণিতবিদ, যুক্তিবিদ ও ক্রিপ্টোবিশেষজ্ঞ।
১৯১৬ – লেন হাটন, তিনি ছিলেন ইংরেজ ক্রিকেটার।
১৯২২ – সফিউদ্দিন আহমেদ, তিনি ছিলেন বাংলাদেশী প্রখ্যাত চিত্রশিল্পী।
১৯৩৬ – সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, তিনি ছিলেন একজন বাংলাদেশী লেখক, প্রাবন্ধিক ও শিক্ষক।
১৯৩৭ – মারটি্ আহটিসারি, তিনি নোবেল পুরস্কার বিজয়ী ফিনিশ রাজনীতিবিদ ও ফিনল্যান্ড এর ১০তম প্রেসিডেন্ট।
১৯৪০ – মাইক শ্রিম্পটন, তিনি নিউজিল্যান্ডীয় সাবেক ক্রিকেটার ও কোচ।
১৯৫৭ – ডেভিড লড হটন, তিনি জিম্বাবুয়ে সাবেক ক্রিকেটার ও কোচ।
১৯৫৭ – ফ্রান্সেস ম্যাকডরমান্ড, তিনি আমেরিকান অভিনেত্রী।
১৯৬৪ – জস্ ওহেডন, তিনি আমেরিকান পরিচালক, প্রযোজক ও চিত্রনাট্যকার।
১৯৭২ – জিনেদিন জিদান, তিনি সাবেক ফরাসি ফুটবল খেলোয়াড়।
১৯৭৬ – প্যাট্রিক ভিয়েরা, তিনি ফরাসি ফুটবলার ও ম্যানেজার।
১৯৮০ – ফ্রান্সেসকা সচিয়ানোনে, তিনি ইতালীয় টেনিস খেলোয়াড়।
১৯৮০ – জেসিকা টেলর, তিনি ইংরেজ মডেল ও গায়িকা।
১৯৮৪ – ডুফি, তিনি ওয়েলশ গায়িকা, গীতিকার ও অভিনেত্রী।
মৃত্যু:
০০৭৯ – – ভেস্পাসিয়ান, তিনি ছিলেন রোমান সম্রাট।
১৮০৬ – – মাথুরিন জ্যাকে জাকুইয়েস বরিসন, তিনি ছিলেন ফরাসি প্রাণিবিজ্ঞানী ও দার্শনিক।
১৮৩৬ – – জেমস মিল, তিনি ছিলেন স্কটিশ ইতিহাসবেত্তা, অর্থনীতিবিদ, রাজনৈতিক তাত্ত্বিক ও দার্শনিক।
১৮৯১ – – উইলহেম এডুয়ার্ড ওয়েবার, তিনি ছিলেন জার্মান পদার্থবিজ্ঞানী ও শিক্ষাবিদ।
১৯৫৯ – – বরিস ভিয়ান, তিনি ছিলেন ফরাসি লেখক, কবি ও নাট্যকার।
১৯৮০ – – ভি.ভি. গিরি, তিনি ছিলেন ভারতীয় রাজনীতিবিদ, ভারতের ৪র্থ প্রেসিডেন্ট।
১৯৯৬ – – আন্দ্রিয়াস পাপান্ডরেওউ, তিনি ছিলেন গ্রিক অর্থনীতিবিদ, রাজনীতিবিদ ও ১৭৪ তম প্রধানমন্ত্রী।
১৯৯৬ – – রেমন্ড রাসেল লিন্ডওয়াল, তিনি ছিলেন অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার ও রাগবি খেলোয়াড়।
২০১৩ – – রিচার্ড মাথেসন, তিনি ছিলেন আমেরিকান লেখক ও চিত্রনাট্যকার।

দিবস:
আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ।
আন্তর্জাতিক অলিম্পিক দিবস ও
জাতিসংঘ জনসেবা দিবস।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply