২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড মৃত্যু দেখল ভারত

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

ভারতে প্রতিদিনের রেকর্ড সংক্রমণের প্রভাব আবারও দেখা গেছে প্রাণহানিতে। দক্ষিণ এশিয়ার দেশটিতে গত একদিনে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ মৃত্যু হয়েছে। এর আগে চলতি মাসের মাঝামাঝিতে (১৬ জুন) একদিনেই ২ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। আর ভাইরাসটির শিকার ৬ লাখের কোটায়। 

দেশটির কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ১৮ হাজার ২৫৬ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এতে করে আক্রান্তের সংখ্যা ৫ লাখ ৮৫ হাজার ৭৯২ জনে দাঁড়িয়েছে। এর মধ্যে ৬০ শতাংশই তিন রাজ্যের (মহারাষ্ট্র, দিল্লি ও তামিলনাড়ু)। 

একইসময়ে প্রাণহানি ঘটেছে ৫০৬ জনের। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত ১৭ হাজার ৪১০ জনের মৃত্যু হলো করোনায়। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৮৬ লাখের বেশি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। 

এর মধ্যে শুধু জুনেই করোনার শিকার ৪ লাখ ও প্রাণহানি ঘটেছে ১২ হাজার মানুষের। যা মোট সংক্রমণ ও প্রাণহানির প্রায় ৭০ শতাংশ। এমন অবস্থায় আজ বুধবার জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

দেশটিতে প্রাণহানির শীর্ষে বরাবরই মহারাষ্ট্র। দিল্লিতেও প্রতিনিয়ত বাড়ছে সংক্রমণ। পরিস্থিতি অবনতির দিকে যাচ্ছে করোনা ছড়িয়ে পড়া ৯টি প্রদেশে। এর মধ্যে সবচেয়ে নাজুক অবস্থা গুজরাট, বিহার, উত্তর প্রদেশ, অন্ধ্র প্রদেশ, কর্নাটক, কেরালা ও হরিয়ানায়।  

সংক্রমণ ঠেকাতে ভারতে প্রথমদিকে সামাজিক দূরত্বের উপর জোর দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু এখন লকডাউনের কড়াকড়ি নেই। অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড শুরু হওয়ায় বাজার-হাট, গণপরিবহনে বেড়েছে লোকের ভিড়। বেড়েছে একে অপরের সংস্পর্শে আসার সম্ভাবনাও। তাই, প্রতিদিনই আশঙ্কাজনকহারে বাড়ছে করোনা রোগীর সংখ্যা। 

তবে আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিন বাড়লেও, হয়ে সুস্থ হয়ে ওঠার সংখ্যাও স্বস্তি দিচ্ছে ভারতবাসীকে। এমনিতেই করোনা অ্যাক্টিভ রোগীর থেকে সুস্থ হয়ে ওঠার সংখ্যা এক লাখেরও বেশি। গত ২৪ ঘণ্টায় ১৩ হাজার ১৪ জন করোনার কবল থেকে মুক্ত হয়েছেন। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত স্বাভাবিক জীবনে ফিরেছেন ৩ লাখ ৪৭ হাজার ৮৩৬ জন ভুক্তভোগী।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply