২৫ বছর ধরে বন্দিজীবন কাটাচ্ছেন রতন, একটিবারও নিয়ে যাওয়া হয়নি হাসপাতালে

কিশোরগঞ্জ :

 একটি ছোট্ট অন্ধকার ঘরের মেঝেতে লোহার শিকলে বাধা অবস্থায় চলছে রতন মিয়ার খাওয়া, ঘুম, পেশাব-পায়খানা সবই।

তিন ভাই ও এক বোনের সংসারে রতন ছোট। বাবা-মা ও মেঝো ভাই বেঁচে নেই। প্রায় ২৫ বছর আগে গরু ফসল নষ্ট করাকে কেন্দ্র করে একই এলাকার এক ব্যক্তি তার মাথায় লাঠি দিয়ে আঘাত করে। এরপর থেকেই তিনি কিছুটা মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়েন। তাকে চিকিৎসা না করিয়ে গোপনে ঘরের বারান্দায় একটি নির্জন আলো-বাতাসহীন কক্ষে শিকলে বেঁধে রাখেন তার এক মাত্র বড় ভাই আঙ্গুর মিয়া। সেই থেকে চলছে তার বন্দি জীবন।

রতনের বাড়ি কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার পাটুয়াভাঙ্গা ইউনিয়নের দক্ষিণ সাটিয়াদী গ্রামে। তার বাবার নাম মৃত আবদুল মোমেন।

এলাকাবাসীর ধারণা, পৈতৃক সম্পত্তি থেকে ছোট ভাইকে বঞ্চিত করার জন্যই তাকে কৌশলে পাগল বলে বন্দি করে রাখা হয়েছে। তবে তার বড় ভাই আঙ্গুর মিয়ার দাবি- রতন মানসিক ভারসাম্যহীন। লোকজনের ক্ষতি করতে পারে। এ জন্য তাকে বেঁধে রাখা হয়েছে। বাবার সম্পত্তি আত্মসাৎ করার জন্য ছোট ভাইকে বেঁধে রাখার অভিযোগ সত্য নয়। এলাকার লোকজন অনেক দিন ধরেই জানেন রতন পাগল।

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply