৮০ লাখ টাকা চুরিতে সফল হওয়ায় মসজিদে মানত শোধ চোর চক্রের

এখন সে ছোট স্ত্রী পারভীনের সঙ্গে থাকে। ছোট স্ত্রীও টানা পার্টির একটি গ্রুপ চালাতো। ব্রিফকেস হান্নানের বিরুদ্ধে ৫০টির মতো মামলা রয়েছে বলে সে নিজেই স্বীকার করেছে। এর মধ্যে নথিভুক্ত ৩০টির মতো মামলার তথ্য পাওয়া গেছে। গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে গেন্ডারিয়া ও যাত্রাবাড়ী থানায় আরও দুটি মামলা করা হয়েছে। তাদের কাছে আরও অস্ত্র রয়েছে কিনা এ বিষয়টিরও তদন্ত চলছে।

টাকা চুরি হওয়ার পর ন্যাশনাল ব্যাংক কোতোয়ালি থানায় একটি মামলা করে। মামলার পর যে গাড়ি থেকে টাকা চুরি হয়েছে সেটির চালক, ব্যাংকটির একজন কর্মকর্তা ও দু’জন নিরাপত্তাকর্মীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তারা বর্তমানে কারাগারে আছে। তবে চুরির সঙ্গে তাদের কোনও সম্পৃক্ততা পায়নি পুলিশ।

ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেডের প্রধান কার্যালয়ের একজন কর্মকর্তা, দু’জন সশস্ত্র নিরাপত্তাকর্মী নিয়ে সুরক্ষিত গাড়িতে ব্যাংকটি পুরান ঢাকার বিভিন্ন শাখা থেকে টাকা তোলেন। ব্যাংকের বিভিন্ন শাখা থেকে টাকা সংগ্রহ করে মতিঝিলের প্রধান কার্যালয়ের দিকে রওনা হয়। ওই দিন পুরান ঢাকার বাবুবাজারে পৌঁছানোর পরই গাড়ির নিরাপত্তাকর্মীরা চিৎকার করে বলেন, ‘টাকার একটি বস্তা পাওয়া যাচ্ছে না। তাতে ৮০ লাখ টাকা ছিল।’

সুত্রঃ বাংলা ট্রিবিউন

Share the post
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply